আহত আবুল কালাম অভিযোগ করে বলেন, গত ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত মদনপুর ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জামাল উদ্দিন হেরে গিয়ে তাঁর লোকজন দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে আসছেন। ২৬ নভেম্বর মেঘনা নদীর মাঝে বিজয়ী চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিনকে হত্যার উদ্দেশ্যেই গুলি ছোড়া হয়। এতে খোরশেদ আলম নামের এক যুবলীগ নেতা নিহত হন। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল রাতে জামালের সমর্থক কালিমুল্লাহ মালের নেতৃত্বে সিরাজ, কামাল, শামিম, সবুজ, শাকিল, আজাদসহ ১০-১২ জন মিলে পাটওয়ারী বাজারে নাছির উদ্দিনের সমর্থকদের ওপর দেশি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালান। এ সময় হামলাকারীরা চারটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেন। হামলায় আওয়ামী লীগের ছয় নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন।

আবুল কালাম আরও বলেন, জামাল উদ্দিন একজন জলদস্যু। তাঁর পক্ষ নিয়ে একটি চক্র মদনপুর ইউপিকে সন্ত্রাসের রাজ্যে পরিণত করতে চায়। মদনপুরের মানুষ এ থেকে পরিত্রাণ চায়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত কালিমুল্লাহ মালের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি। তাঁর ছোট ভাই আলাউদ্দিন মাল বলেন, মূলত দুই গ্রুপের মারামারি দেখে তাঁর ভাই কালিমুল্লাহ তাঁদের থামাতে গিয়েছিলেন। তিনি কাউকে মারধর করেননি।

দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলার রহমান প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে আজ সকালে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন