বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিপ্লব ব্যাপারী উপজেলার সাফা গ্রামের নূর উদ্দিন ব্যাপারীর ছেলে। তিনি ধানীসাফা ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি। বিপ্লবের বড় ভাই বাচ্চু ব্যাপারী ধানীসাফা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি।

ধানীসাফা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ বলেন, গতকাল বুধবার রাতে বিপ্লব ব্যাপারী ধানীসাফা ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদের পোস্টার নিয়ে আলগী বাজারে দলীয় কার্যালয়ে যান। রাত সাড়ে নয়টার দিকে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুল ইসলামের সমর্থক আলগী গ্রামের ফরিদ আকনের নেতৃত্বে একদল লোক বিপ্লব ব্যাপারীর ওপর হামলা করে। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাঁকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

ধানীসাফা ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ অভিযোগ করেন, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুল ইসলামের লোকজন তাঁর সমর্থক বিপ্লবকে কুপিয়ে জখম করেছেন।

তবে অভিযোগের বিষয়ে জানতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুল ইসলামের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক তানভীর আহমেদ বলেন, গতকাল রাত ১০টার দিকে বিপ্লব ব্যাপারীকে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর মাথা, পিঠ ও দুই হাতে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে। তাঁর বাঁ হাতের কবজি অনেকাংশে কেটে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নূরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর মামলা নেওয়া হবে।

আগামী ৫ জানুয়ারি মঠবাড়িয়া উপজেলার ধানীসাফাসহ চারটি ইউপিতে ভোট হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন