স্থানীয় গ্রাম পুলিশ ও এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার বাদুরা গ্রামে উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্পের বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য গতকাল শনিবার বিকেলে গ্রামে যান চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন। বাঁধটি নির্মাণ করতে হলে স্থানীয় বাদুরা ডিএইচএস হাসানিয়া দাখিল মাদ্রাসা, সোবাহান শরীফ মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করতে হবে। এতে প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা আছে। স্থানীয় গ্রামবাসী প্রতিষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বাঁধ নির্মাণে বাধা দেন। এরপর চীনা শ্রমিকেরা চলে যান।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে আরও জানা যায়, আজ সকাল ৯টার দিকে একটি মিনিট্রাক ও ১০ থেকে ১২টি মোটরসাইকেলে চারজন চীনা শ্রমিকসহ ৩০ থেকে ৩৫ জন শ্রমিক সেখানে আবার কাজ করতে যান। এ সময় গ্রামবাসী ও বাদুরা বাজারের ব্যবসায়ীরা বাধা দেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে দুই চীনা শ্রমিকসহ উভয় পক্ষের সাতজন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহত ব্যক্তিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

গ্রাম পুলিশ শাহ আলম প্রথম আলোকে বলেন, চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যে জায়গা দিয়ে বেড়িবাঁধটি নির্মাণ করতে চান, সেভাবে করলে দুটি বিদ্যালয়, একটি মাদ্রাসা, বেসরকারি শিক্ষক সমিতি ভবন ও মসজিদের মধ্য দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করতে হবে। এতে প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হবে। গ্রামবাসী এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্য দিয়ে না করে ঘুরিয়ে বাঁধ নির্মাণের দাবি করেছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পিরোজপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবে মাওলা মো. মেহেদী হাসান বলেন, উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্পের কাজটি একটি চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বাস্তবায়ন করছে। কাজটি দেখভাল করার জন্য প্রকল্প পরিচালক আছেন। তিনি এ বিষয়ে তেমন কিছু বলতে পারবেন না।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় গ্রামের তিনজন বাসিন্দাকে আটক করেছে পুলিশ। সংঘর্ষে একজন চীনা শ্রমিকের মাথায় সামান্য জখম হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন