বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শনিবার রাতে উপজেলার টিয়ারখালী এম এম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে শেখ রাসেল শর্টবার নাইট ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলা অনুষ্ঠিত হয়। রাত পৌনে ১০টার দিকে খেলা শেষ হওয়ার পর মো. রাহাত বন্ধুদের সঙ্গে বাড়িতে ফিরছিলেন। রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলার লক্ষণা গ্রামের বোবা বাড়ির কাছে পূর্বশত্রুতার জেরে একদল তরুণ রাহাত ও তাঁর বন্ধুদের ওপর হামলা করে। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় রাহাতসহ গুলিসাখালী গ্রামের সানাউল হক (২০), আরিফ (১৮), শুভ (১৬) ও আবদুল লতিফ (২০) আহত হন।

স্থানীয় লোকজন আহত তরুণদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। হাসপাতালে নেওয়ার কিছুক্ষণ পর রাহাত মারা যান। গুরুতর আহত সানাউল হক, আরফি ও শুভকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত আবদুল লতিফকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক রাজু চন্দ্র সরকার বলেন, রাহাতের বুকে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে। তাঁকে হাসপাতালে আনার কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান। আহত তরুণদের শরীরে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে।

নিহত রাহাতের বাবা শাহ আলম জানান, রাতে ফুটবল খেলা দেখে রাহাত তাঁর বন্ধুদের সঙ্গে বাড়িতে ফেরার পথে পূর্বশত্রুতার জেরে ছয় থেকে সাতজন তরুণ হামলা করেন। তাঁরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেন। রাহাতের বুকে ছুরিকাঘাত করায় তিনি মারা যান।

উপজেলার হলতা গুলিসাখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রিয়াজুল আলম বলেন, ‘সাব্বির নামের এক তরুণের সঙ্গে শুভর বিরোধ ছিল। শুনেছি, প্রেমঘটিত ঘটনা নিয়ে গত শুক্রবার তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এ ঘটনার জেরে সাব্বিরের নেতৃত্বে শুভ ও তার বন্ধুদের ওপর হামলা করা হয়।’

মঠবাড়িয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবদুল হক বলেন, পূর্বশত্রুতার জেরে হামলায় রাহাত নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন