default-image

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বেতমোর রাজপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শহিদুল ইসলামের গণসংযোগে হামলায় ২০ জন সমর্থক আহত হয়েছেন। আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার বেতমোর বাজারে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর লোকজন এ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, সকালে বেতমোর রাজপাড়া ইউপি নির্বাচনের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বেতমোর বাজারে গণসংযোগ করছিলেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে ১৫০ থেকে ২০০ জন সমর্থক ছিলেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন আকনের কর্মী আলমগীরের নেতৃত্বে শতাধিক লোক ধারালো অস্ত্র ও লাঠি নিয়ে শহিদুল ইসলামের সমর্থকদের ওপর হামলা চালান। প্রতিপক্ষের অতর্কিত হামলায় লোকজন দিগ্‌বিদিক হয়ে ছত্রভঙ্গ হয়ে যান।

গুরুতর চারজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে।

হামলায় শহিদুল ইসলামের অন্তত ২০ জন সমর্থক আহত হন। এর মধ্যে গুরুতর জখম আদম আলী (৫৫), শাহিন (২২), মো. অলি (২৮), মো. মাসুম হাওলাদার (৫০), আনোয়ার তালুকদার (৩২), নান্না মিয়া (২৮), মো. হোসাইন (২৫), সানাউল্লাহ (২০) ও মহাসিনকে (২১) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য আদম আলী, শাহিন, মো. অলি ও মো. মাসুম হাওলাদারকে বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি পাঁচজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। এ ছাড়া আহত ব্যক্তিদের মধ্যে অন্তত ১১ জন স্থানীয় পল্লিচিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক তারিকুল ইসলাম বলেন, ৯ জন আহত অবস্থায় হাসপাতালে এসেছেন। তাঁদের মধ্যে গুরুতর চারজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন আকনের কর্মী আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে শতাধিক ব্যক্তি আমার সমর্থকদের ওপর হামলা করেন। এতে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।
শহিদুল ইসলাম, বেতমোর রাজপাড়া ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আজ শনিবার বেতমোর বাজারে হাটের দিন ছিল। সকাল ১০টার দিকে আমি সমর্থকদের নিয়ে বেতমোর বাজারে গণসংযোগ শুরু করি। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন আকনের কর্মী আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে শতাধিক ব্যক্তি আমার সমর্থকদের ওপর হামলা করেন। এতে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন আকনের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। এরপর খুদে বার্তা পাঠালেও তিনি সাড়া দেননি।

মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ জেড এম মাসুদুজ্জামান বলেন, পুলিশ আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন