মতলবে মারা যাওয়া চিকিৎসক কোভিড আক্রান্ত ছিলেন না

বিজ্ঞাপন
default-image

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মারা যাওয়া চিকিৎসক কোভিড–১৯ আক্রান্ত ছিলেন না। তাঁর করোনাভাইরাস সংক্রমণের নমুনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে। জ্বর, সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে গত সোমবার তিনি মারা যান।
আজ শনিবার বেলা একটার দিকে ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পাঠানো নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে ওই চিকিৎসকের ফল নেগেটিভ আসে।
মারা যাওয়া চিকিৎসকের নাম হৃদয় কৃষ্ণ বণিক (৫৯)। তিনি মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (সাকমো) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রাজীব কিশোর বণিক জানান, চিকিৎসক হৃদয় কৃষ্ণ বণিকের বাড়ি উপজেলার আলিয়ারা গ্রামে। পরিবার নিয়ে চাঁদপুর শহরের একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। মারা যাওয়ার কয়েক দিন আগে তাঁর জ্বর, সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। সঙ্গে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদ্‌যন্ত্রের সমস্যাও ছিল। করোনাভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ থাকায় গত রোববার (২৪ মে) তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার আইইডিসিআরে পাঠানো হয়। নমুনা পরীক্ষার ফলাফল আসার আগেই গত সোমবার চাঁদপুরের ওই বাসায় তিনি মারা যান। ওই দিন গ্রামের বাড়িতে তাঁর মরদেহ সৎকার করা হয়।
®রাজীব কিশোর বণিক আরও বলেন, আজ নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে জানা যায়, হৃদয় কৃষ্ণ বণিক করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা যাননি। অর্থাৎ তিনি কোভিড–১৯ আক্রান্ত ছিলেন না।
হৃদয় কৃষ্ণ বণিকের পরিবারের এক সদস্য বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের উপসর্গ থাকায় তিনি ধরেই নিয়েছিলেন তিনি কোভিড–১৯ আক্রান্ত। এ সন্দেহে নিজ উদ্যোগেই পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি জানলেনও না তাঁর করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছিল না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন