default-image

চাঁদপুরে মতলব পৌরসভায় মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী এনামুল হক ওরফে বাদল নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। আজ সোমবার বেলা ১১টায় চাঁদপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

এ সময় বিএনপির প্রার্থী ভোটের প্রচারণায় কর্মী-সমর্থকদের বাধা, পোস্টার-ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা, নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের অসহযোগিতা, আওয়ামী লীগ-যুবলীগের নেতা-কর্মীদের হুমকি-ধমকি এবং মামলা-হামলা করার অভিযোগ করেন। ২৮ ফেব্রুয়ারি এই পৌরসভায় ভোট গ্রহণের কথা রয়েছে। নির্বাচনে মেয়র পদে চারজন প্রার্থী রয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি এনামুল হক বলেন, মনোনয়নপত্র দাখিলের পর থেকে স্থানীয় নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন তাঁকে অসহযোগিতা করে আসছে। আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা পৌরসভাটির প্রতিটি এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছেন। প্রতিদিন তাঁর দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের হুমকি-ধমকি দেওয়া হচ্ছে। নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে বাধা দিয়ে আওয়ামী লীগের লোকজন তাঁর (এনামুল) দলের নেতা-কর্মীদের বাড়ি ও এলাকা ছাড়ার হুমকি দিচ্ছেন। নির্বাচনের প্রচারণার দিন থেকে পৌরসভার সব ওয়ার্ডে লাগানো ধানের শীষের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

এনামুল হক অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের এসব হুমকি-ধমকি ও অগণতান্ত্রিক আচরণের বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও নির্বাচনটির রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) বরাবর একাধিকবার লিখিত অভিযোগ করেও প্রতিকার পাননি। কয়েক দিন আগে জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এসব বিষয় নিয়ে অভিযোগ করেন। এতেও প্রতিকার মেলেনি। উল্টো ওই দিনই পৌরসভার মুন্সীরহাট ও জাফরিয়া এলাকায় আওয়ামী-যুবলীগের সন্ত্রাসীরা হুমকি দিয়ে তাঁর (এনামুল) গণসংযোগ বানচাল করে দেন।

বিজ্ঞাপন

এনামুল হক বলেন, দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের পরামর্শে একতরফা প্রহসনের নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। একই সঙ্গে একতরফা ওই নির্বাচন থেকে দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের বিরত থাকারও আহ্বান জানান তিনি।

এ সম্পর্কে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আওলাদ হোসেন বলেন, তাঁর দলের কেউ বিএনপি প্রার্থী ও তাঁর লোকজনের প্রচারণায় বাধা দেননি। ভোটের মাঠে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করার অভিযোগ ভিত্তিহীন। বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে ওই সব ঘটনা ঘটছে।

এ ব্যাপারে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও মতলব পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ তোফায়েল হোসেন বলেন, বিএনপির মেয়র প্রার্থীর অভিযোগ পেয়েছেন। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এরপরও ওই প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের বিষয়টি দুঃখজনক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন