ওই ছাত্রীর বাবা জানান, মামলাটি আদালতে বিচারাধীন থাকায় ওই মামলার সাক্ষী দিতে গত ২৩ মার্চ তাঁর মেয়ে আদালতে যায়। আদালত থেকে বাড়ি ফিরেই তাঁর মেয়ে তিনি চুপচাপ হয়ে যায়। পরদিন ২৪ মার্চ সন্ধ্যায় কাউকে না জানিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এরপর তাঁর মেয়ের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

ওই ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করে বলেন, ২৩ মার্চ আদালত থেকে এসে তাঁর মেয়ে হতাশ হয়ে যায়। পরদিন সন্ধ্যায় তাঁর বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হয়। ধর্ষণ মামলার অভিযুক্ত অপু মিয়া জামিনে রয়েছেন।

এ ব্যাপারে মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, ধর্ষণ মামলার বাদী ওই ছাত্রী নিখোঁজের ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন