বিজ্ঞাপন

নিহত দিলওয়ার হোসেন কৃষ্ণপুর গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে। তিনি নিজ গ্রামে সড়কের পাশে একটি মুদির দোকান পরিচালনা করে আসছিলেন। তাঁর ওপর হামলা চালানোর ঘটনায় আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন মো. আল আমিন মিয়া (৩৫), মো. আবুল কাশেম (৫৫) ও আয়াতুল মিয়া (৩০)। তাঁদের বাড়িও কৃষ্ণপুর গ্রামে।
এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় এক বছর আগে দিলওয়ার হোসেনের সঙ্গে প্রতিবেশী আন্তু মিয়ার ছেলে আল আমিনের জমি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। পরে গ্রাম্য মাতবরেরা সালিসের মাধ্যমে বিষয়টি মীমাংসা করে দেন।

কিন্তু আল আমিন ভেতরে-ভেতরে বিরোধ পুষে রাখেন। আজ শুক্রবার দুপুরে দিলওয়ার গরু নিয়ে গ্রামের সামনে হাওরে গেলে পূর্বশত্রুতার জের ধরে আল আমিন তাঁর লোকজন নিয়ে অতর্কিতে হামলা চালান। এ সময় ধারালো দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে দিলওয়ার হোসেন গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানকার জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শান্তনু শাহা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে দিলওয়ার হোসেনের মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে আল আমিনসহ তিনজনকে আটক করে।
এ ব্যাপারে মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। ঘটনায় জড়িত অভিযোগে আল আমিনসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন