default-image

বৃষ্টিতে উজান থেকে নামা পাহাড়ি ঢলের সঙ্গে কাঠ ভেসে আসে। সেই কাঠ সংগ্রহ করতে গত বুধবার সন্ধ্যায় মনু নদে নামেন এক তরুণ। এরপর তাঁর আর খোঁজ মিলছিল না। গতকাল বৃহস্পতিবার ডুবুরি দল প্রায় চার ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়েও তাঁর সন্ধান পায়নি। অবশেষে আজ শুক্রবার সকালে নদে তাঁর লাশ ভেসে ওঠে। এ ঘটনা ঘটেছে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী দত্তগ্রাম এলাকায়।

মারা যাওয়া ওই তরুণের নাম সালাউদ্দিন (১৮)। তিনি হাজীপুর ইউনিয়নের বিলেরপার গ্রামের মৃত ছমেদ আলীর ছেলে। আজ সকাল নয়টার দিকে কুলাউড়া থানার পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধারের জন্য ঘটনাস্থলের দিকে রওনা দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসী ও কুলাউড়া ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, পাহাড়ি ঢলের সঙ্গে প্রায়ই মনু নদ দিয়ে উজান থেকে বিভিন্ন প্রজাতির গাছের খণ্ড ভাটির দিকে ভেসে আসে। এ সময় নদীতীরবর্তী এলাকার লোকজন জ্বালানি হিসেবে ব্যবহারের জন্য নদে নেমে এসব কাঠ সংগ্রহ করেন। সালাউদ্দিন রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। পাহাড়ি ঢল নামায় তিনিসহ আরও চার যুবক কাঠ সংগ্রহের জন্য বুধবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে দত্তগ্রামে গিয়ে নদে নামেন। কাঠ সংগ্রহের পরে সালাউদ্দিন আর তীরে ওঠেননি। আশপাশে নদের বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

গতকাল সকালে খবর পেয়ে সিলেট থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ সদস্যের ডুবুরি দল উদ্ধারকাজ শুরু করে। সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়েও তারা সালাউদ্দিনের কোনো সন্ধান পায়নি। আজ সকাল সাতটার দিকে দত্তগ্রামে নদে একটি লাশ ভাসতে দেখেন স্থানীয় লোকজন। পরে স্বজনেরা গিয়ে লাশটি সালাউদ্দিনের বলে শনাক্ত করেন।

স্থানীয় সূত্র আরও জানায়, গতকাল সকালে খবর পেয়ে সিলেট থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ সদস্যের ডুবুরি দল উদ্ধারকাজ শুরু করে। সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়েও তারা সালাউদ্দিনের কোনো সন্ধান পায়নি। আজ সকাল সাতটার দিকে দত্তগ্রামে নদে একটি লাশ ভাসতে দেখেন স্থানীয় লোকজন। পরে স্বজনেরা গিয়ে লাশটি সালাউদ্দিনের বলে শনাক্ত করেন।

হাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য গুলজার আজ সকাল নয়টার দিকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, নিখোঁজ সালাউদ্দিনের লাশ মিলেছে। বিষয়টি কুলাউড়া থানার পুলিশকে জানানো হয়েছে। প্রবল স্রোতে তিনি (সালাউদ্দিন) নদে ডুবে যেতে পারেন বলে তাঁরা ধারণা করা হচ্ছে।

কুলাউড়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সনক কান্তি দাস সকাল সোয়া নয়টার দিকে মুঠোফোনে বলেন, খবর পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে যাচ্ছেন। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজারের ২৫০ শয্যার হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন