default-image

ফেনীর সোনাগাজীতে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারে বাধ্য করায় ফেসবুকে লাইভে এসে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন মো. শাহ জাহান নামের এক কাউন্সিলর প্রার্থী। তিনি পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

বুধবার সন্ধ্যায় পৌরসভার তুলাতলী এলাকায় নিজ বাড়িতে বিষ পান করে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন।

শাহ জাহান অভিযোগ করেন, নিজ দলের কয়েকজন নেতা জোর করে তাঁকে কাউন্সিলর পদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে বাধ্য করেছেন।

পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ শাহ জাহানসহ ফেনীর সোনাগাজীতে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে ১২ জন প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। এর মধ্যে মেয়র পদে দুজন, সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নয়জন এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে একজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের করেন।

বিজ্ঞাপন

একাধিক প্রার্থীর অভিযোগ, মঙ্গলবার রাত থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার আগপর্যন্ত স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা নানাভাবে হুমকি-ধমকি ও চাপ প্রয়োগ করেন।

ফেসবুক লাইভে এসে শাহ জাহান প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বলেছেন, পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূলকে গুরুত্ব দিতে। আপনার কথায় আশ্বস্ত হয়ে আমি সোনাগাজী পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন সংগ্রহ করি। আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের কয়েকজন নেতা আমাকে সকাল থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে চাপ দিতে থাকেন। আমি তাঁদের চাপে পড়ে আত্মগোপনে চলে যাই। বিকেলে তাঁরা আমার বাড়ি গিয়ে আমার বৃদ্ধ মাকে চাপ প্রয়োগ শুরু করেন। খবর পেয়ে বাড়িতে গেলে তাঁরা আমাকে জোর করে ধরে নির্বাচন কার্যালয়ে নিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে বাধ্য করেন।’

শাহ জাহান বলেন, ‘যাঁরা জোর করে আমাকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে বাধ্য করেছেন, আমার মৃত্যুর জন্য তাঁরাই দায়ী থাকবেন।’

শাহ জাহানের স্বজনেরা জানান, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারে বাধ্য করায় সন্ধ্যায় তিনি ঘরের ভেতরে দরজা বন্ধ করে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরে দরজা খুলে তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. সাদেকুল করিম বলেন, বিষপানে অসুস্থ অবস্থায় শাহ জাহান নামের একজনকে হাসপাতালে আনা হয়। দ্রুত তাঁর পাকস্থলী পরিষ্কার করা হয়। বর্তমানে তিনি আশঙ্কামুক্ত। তাঁর শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাহার উল্যাহ নামের এক কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করায় তাঁর বাড়িতে প্রতিপক্ষের লোকজন হামলা চালিয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। এ ঘটনায় তিনি থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন