দক্ষিণ কালিগঞ্জ এলাকার তরুণ সোহাগ হোসেন (২৫) মুঠোফোনে বলেন, দুপুরে তিনিসহ এলাকার ১১ ব্যক্তি মহানন্দা নদীতে মাছ ধরতে যান। এ সময় তাঁরা বড় জাল ফেলে মাছ ধরার চেষ্টা করছিলেন। একপর্যায়ে তাঁরা নদীর প্রায় ১০ থেকে ১২ ফুট গভীর একটি গর্তে জাল ফেলে পানিতে ডুব দিয়ে মাছ খুঁজতে থাকেন। এ সময় রাসেল (২২) নামের এক তরুণের হাতে একটি বড় মাছ লাগলে তাঁরা সবাই জালের চারদিক চেপে ধরে সেটি ধরেন। পরে তাঁরা মাছটি বাগাড় বলে নিশ্চিত হন। মাছটির ওজন ৩৫ কেজি। পরে তাঁরা মাছটি স্থানীয় তীরনই হাটে নিয়ে যান।

এদিকে বড় বাগাড় ধরার খবর ছড়িয়ে পড়লে সেটি দেখতে আশপাশের এলাকা থেকে নানা বয়সী মানুষ তীরনই হাটে ভিড় জমান।

সোহাগ হোসেন মুঠোফোনে আরও বলেন, ‘আমরা মাঝেমধ্যেই শখ করে মহানন্দা নদীতে মাছ ধরতে যাই। আজ যে মাছটি ধরেছি, সেটি ১ হাজার ৬০০ টাকা কেজি দরে ১৭ কেজি মাছ বিক্রি করেছি। আর বাকিটা আমরা ১১ জন মিলে ভাগ করে নিয়েছি। মাছটি ৩৫ কেজি ওজনের হলেও কাটার পর ভুঁড়ি-পাখনা বাদ দিয়ে ৩২ কেজি হয়েছে।’

এর আগে ২০২১ সালের ২৫ জুলাই তেঁতুলিয়া উপজেলার তেঁতুলিয়া সদর ইউনিয়নের সরদারপাড়া এলাকার মহানন্দা নদীতে একটি ২৮ কেজি ওজনের বাগাড় এবং ২০১৯ সালের ৩০ আগস্ট একই এলাকায় একই নদীতে ৪০ কেজি ওজনের একটি বাগাড় স্থানীয় ব্যক্তিদের জালে ধরা পড়েছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন