বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মহেশখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আশিক ইকবাল প্রথম আলোকে বলেন, আজ সকালে সোনাদিয়া চ্যানেল থেকে ভাসমান অবস্থায় নিখোঁজ পর্যটক সাকিবুলের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে তাঁর আত্মীয়স্বজনেরা সাকিবুলের লাশ নিয়ে যান।

আশিক ইকবাল আরও বলেন, সোমবার দুপুরে পিকনিকে যাওয়ার জন্য ১৫ জন স্থানীয় পর্যটক সোনাদিয়া দ্বীপে যান। স্থানীয় পর্যটকের মধ্যে বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থী রয়েছেন। পরে রাত আটটায় তাঁদের বহনকারী নৌকাটি সাগরে ডুবে যায়। এ সময় এক পর্যটক ৯৯৯– এ ফোন করে তাঁদের উদ্ধারে সহযোগিতা চান। খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন ও মহেশখালী থানা–পুলিশের যৌথ উদ্যোগে তাঁদের উদ্ধারের জন্য ঘটনাস্থলে দুটি বোট পাঠানো হয়। রাত ১১টায় ১৪ জন পর্যটককে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হলেও সাকিবুল নিখোঁজ ছিলেন।

এদিকে ১৪ জন পর্যটককে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করায় আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ১৪ জন স্বেচ্ছাসেবীকে সম্মাননা দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। উদ্ধারকারী দলের প্রত্যেক স্বেচ্ছাসেবককে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি টর্চলাইট, একটি বয়া ও ৫০০ টাকা করে সম্মাননা দেওয়া হয়।

জানতে চাইলে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান বলেন, সোমবার রাতে ১৪ জন স্বেচ্ছাসেবক সাগর থেকে ১৪ জন পর্যটককে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করেন। তাৎক্ষণিকভাবে স্বেচ্ছাসেবকেরা ঘটনাস্থলে না গেলে একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে যেত। তাই তাঁদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আজ সকালে উদ্ধারকারী দলের সদস্যদের সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন