বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র জানায়, ইনারুল ইসলামের নতুন বাজারে একটি চায়ের দোকান আছে। বাজারটি নতুন হওয়ায় চুরি হওয়ার আশঙ্কা থাকায় রাতে দোকানেই থাকতেন ইনারুল। বৃহস্পতিবার রাতেও তিনি দোকানে ছিলেন। সকালে এলাকার লোকজন বাজারে এসে দেখতে পান, দোকানের পেছনে ইনারুল ইসলামের লাশ পড়ে আছে। তাঁর মুখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে ক্ষত করার দাগ রয়েছে। এলাকার লোকজন ধারণা করছেন, কেউ তাঁকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে হত্যার পর ফেলে রেখে গেছে। নিহত ইনারুল ইসলামের স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে আছে।

এ বিষয়ে মহেশপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানান, চা বিক্রেতা ইনারুল ইসলামকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত ও শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে তাঁরা ধারণা করছেন। হত্যাকাণ্ডের কারণ তাৎক্ষণিকভাবে তিনি জানাতে পারেননি। তবে পুলিশ এ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। হত্যাকারীদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন