default-image

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় মাইক্রোবাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। আজ শনিবার সকালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ছদাহার শিশুতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার সুখছড়ি এলাকার আবদুর রহমানের ছেলে মো. ওবায়দুল হক (৩২) ও তাঁর শ্যালক লোহাগাড়ার জঙ্গল পদুয়ার ওসমান গনির ছেলে মোহাম্মদ নোমান (২০)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আজ সকাল আটটার দিকে ওবায়দুল হক ও নোমান মিলে মোটরসাইকেলে করে চট্টগ্রামের দিকে যাচ্ছিলেন। তাঁরা মহাসড়কের শিশুতলা এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা দ্রুতগতির একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে মোটরসাইকেলটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

আজ সকালে ওবায়দুল হক জঙ্গল পদুয়ার শ্বশুরবাড়ি থেকে শ্যালককে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে চট্টগ্রামের দোকানে যাচ্ছিলেন। পথে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে দুজনই মারা গেছেন।

নিহত ওবায়দুল হকের চাচাতো ভাই মোহাম্মদ শোয়াইব প্রথম আলোকে বলেন, ওবায়দুল হকের চট্টগ্রাম নগরে মোটর মেকানিকের ব্যবসা ছিল। তাঁর দোকানে শ্যালক নোমান কর্মচারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আজ সকালে ওবায়দুল হক জঙ্গল পদুয়ার শ্বশুরবাড়ি থেকে শ্যালককে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে চট্টগ্রামের দোকানে যাচ্ছিলেন। পথে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে দুজনই মারা গেছেন।

দোহাজারী হাইওয়ে থানা-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুর রব বলেন, খবর পাওয়ার পর নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা দুপুরে থানায় আসেন। পরে আইনগত ব্যবস্থা শেষে লাশ দুটি তাঁদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুর্ঘটনার পরপর মাইক্রোবাসের চালক পালিয়ে গেছেন। তবে মাইক্রোবাসটি জব্দ করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন