default-image

মাগুরা সদর উপজেলার হাজরাপুর ইউনিয়নের ছোট খালিমপুর গ্রামে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দাউদ আলী ওরফে টাইগার দাউদ (৪৫) নিহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত সোয়া একটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

দাউদের বাবার নাম বাবর আলী। তাঁর বাড়ি উপজেলার গৌরিচরণপুর গ্রামে। 

পুলিশের দাবি, দাউদ চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী। ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক, রাইফেল ও এয়ারগান এবং ২১টি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পুলিশের চার সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁরা সদর হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। 

মাগুরার সহকারী পুলিশ সুপার (এএফপি-সার্কেল) সুদর্শন রায়ের ভাষ্য, সদর উপজেলার হাজরাপুর ইউনিয়নের বড়ইচারা গ্রাম থেকে গতকাল রাত ১১টার দিকে দাউদকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল রাতে অস্ত্র উদ্ধারে যায়। পুলিশের দলটি ছোট খালিমপুরে পৌঁছতেই দাউদের সহযোগীরা তাঁকে ছিনিয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় পালাতে গিয়ে দাউদ গুলিবিদ্ধ হন। পরে দাউদকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। 

সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাকিবুল ইসলাম বলেন, রাত আড়াইটার দিকে পুলিশ কাপড়ে মোড়ানো গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক ব্যক্তিকে নিয়ে এলে তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয়।
এএসপি সুদর্শন রায়ের তথ্যমতে, দাউদের বিরুদ্ধে ছয়টি হত্যা ও দুটি অস্ত্র আইনে মামলা রয়েছে। তাঁর লাশ সদর থানায় আনা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ পরে মর্গে পাঠানো হবে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন