বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ ও মাগুরা জেলার ওপর দিয়ে কুমার নদ বয়ে গেছে, যার দৈর্ঘ্য ১২৪ কিলোমিটার। ঝিনাইদহের শৈলকুপা বাজারের একাংশ গড়ে উঠেছে এই কুমার নদের তীরে। উপজেলার আবাইপুর, হাট-ফাদিলপুরসহ বেশ কয়েকটি বাজারের অবস্থান নদের পাড়ে। এসব বাজারে নদের জমিতে অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে হাট-ফাদিলপুর বাজারের নিচে এক্সাভেটর দিয়ে নদ থেকে মাটি কাটা হচ্ছে।

গত শনিবার গিয়ে দেখা যায়, হাট-ফাদিলপুর-কামান্না সড়কের কুমার নদের ওপর থাকা সেতুর পশ্চিমে এক্সাভেটর যন্ত্র দিয়ে মাটি কাটা হচ্ছে। নদের তলদেশ সমতল থাকলেও সেখানে গর্ত খুঁড়ে সেই গর্তের মাটি পাড়ে জমানো হচ্ছে।

স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ওই জমানো মাটি সমান করে সেখানে চাষাবাদ করা হবে। হাট-ফাদিলপুর বাজারের বাসিন্দা নেকবার আলীর ছেলে সোহেল রানা সেখানে মাটি কাটছেন। তিনি নদের জায়গায় চাষাবাদ করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে সোহেল রানা বলেন, তিনি কিছুটা জায়গা চাষযোগ্য করে তুলছেন। এতে নদের কোনো ক্ষতি হবে না। তা ছাড়া খুব বেশি গর্ত করছেন না। পাঁচ–ছয় ফুট জায়গার মাটি কেটে পাড়ে দিচ্ছেন। ওই মাটি পরে পানির চাপে আবার ওই স্থানে চলে যাবে।

হাট-ফাদিলপুর বাজারের এক ব্যবসায়ী বলেন, মাঝেমধ্যে উচ্ছেদ অভিযানের কথা তাঁরা শোনেন। কিন্তু অভিযান হয় না। দ্রুত নদের ভেতর অবৈধ স্থাপনা দখলমুক্ত করা দরকার।

শৈলকুপার সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রার্থ প্রতীম শীল বলেন, বিষয়টি তিনি অবগত নন। তবে নদের মাটি কাটা যেন দ্রুত বন্ধ হয়, সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন