সংবাদ সম্মেলনে রিয়াজ শাহরিয়ার বলেন, তদন্ত শুরুর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই নিহত যুবকের পরিচয় জানা যায়। অন্তর আলী পাবনার চাটমোহরের পাতাইলহাট গ্রামের ছবের আলীর ছেলে।

পরে প্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনায় জড়িত সন্দেহে অন্তরের বন্ধু এরশাদ আলী (৩৪) ও রিপন সরকারকে (৩২) আটক করা হয়। এরশাদ ও রিপন চাটমোহরের মহেলা রেলস্টেশন–সংলগ্ন গুয়াখাড়া বাজারের পরিচ্ছন্নতাকর্মী। তাঁরা একই সঙ্গে বসবাস করতেন ও পরস্পর মাদক ব্যবসার সহযোগী ছিলেন।

রিয়াজ শাহরিয়ার বলেন, রিপনের সঙ্গে ব্যবসার হিসাব নিয়ে নিহত অন্তরের বিরোধ সৃষ্টি হয়। এ বিরোধের জেরে গত শনিবার রাতে তাঁরা তিন বোতল চোলাইমদ কেনেন। এরশাদ ও রিপন কৌশলে অন্তরের বোতলে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দেন। পরে তাঁরা অটোরিকশা নিয়ে গুরুদাসপুরের উদবারিয়া দাখিল মাদ্রাসা চত্বরে আসেন। সেখানে মদ পানের পর অন্তর ঘুমিয়ে পড়লে অন্যরা অন্তরের গায়ের জামা খুলে গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।

আটকের পর আসামিদের নিয়ে র‌্যাব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং তাঁদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া রেলস্টেশনের প্ল্যাটফর্মের পূর্ব পাশ থেকে অন্তরের ছেঁড়া শার্ট ও বালতি জব্দ করে।

র‌্যাবের অধিনায়ক আরও জানান, আজ মঙ্গলবার দুপুরে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তাঁদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন নাটোর র‌্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) ফরহাদ হোসেন ও সহকারী পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন