মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ, আটক ৩

হত্যা
প্রতীকী ছবি

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলায় মনোয়ারা বেগম (৬৫) নামের এক মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে উপজেলার মহিচরণ মধ্যপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে ওই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে স্থানীয় লোকজন বাড়ি ঘেরাও করে একই পরিবারের তিনজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

আটক তিনজন হলেন মহিচরণ গ্রামের শহিদুল ইসলাম (৪০), তাঁর স্ত্রী সীমা আকতার (৩২) ও শহিদুলের মা আমেনা বেগম ওরফে ওবেদা (৫৮)।

থানা–পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, মহিচরণ গ্রামের মৃত করিম ব্যাপারীর স্ত্রী মনোয়ার বেগম দীর্ঘদিন ধরে মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। মানুষের কাছে চেয়েচিন্তে খান তিনি। রোববার বিকেলে মনোয়ারা গ্রামের রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় ‘পাগলী’ বলে উপহাস করে এক শিশু ইটের টুকরা ছুড়ে মারে। এ ঘটনায় মনোয়ারা বিচার চাইতে শিশুটির মা–বাবা শহিদুল ইসলাম ও সীমা আকতারের কাছে যান। তাঁরা কাঠ দিয়ে মনোয়ারাকে পিটিয়ে আহত করেন। পরে পরিবারের লোকজন মনোয়ারাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার পর বাড়িতে নিয়ে যান। রাতে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়লে সকালে অনেক ডাকাডাকির পর কোনো সাড়া না পেয়ে পরিবারের লোকজন ঘরে গিয়ে মনোয়ারাকে মৃত অবস্থায় পান। ঘটনা জানাজানির পর প্রতিবেশীরা শহিদুলের বাড়ি ঘেরাও করে তাঁর পরিবারের তিন সদস্যকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

সোনাতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম বলেন, লাশের ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। মানসিক ভারসাম্যহীন মনোয়ারাকে হত্যার অভিযোগ এনে ঘটনায় স্থানীয় লোকজন তিনজনকে থানায় সোপর্দ করেছেন। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।