বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গড়পাড়া ইউপিতে আফসার উদ্দিন সরকার একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন। অপরদিকে জাগীর ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী জাকির হোসেন, জাকের পার্টির আরফান ব্যাপারী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে শহীদুল ইসলাম মনোনয়নপত্র জমা দেন।

তবে ৬ নভেম্বর আরফান ব্যাপারী এবং ৯ নভেম্বর শহীদুল ইসলাম মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের ওই দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করে উপজেলা নির্বাচন কমিশন।

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. সাহিদ হোসেন শুক্রবার সকালে প্রথম আলোকে বলেন, তাঁদের দুজনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হলেও নির্বাচনী তফসিল অনুয়ায়ী ভোট শেষে অন্যদের সঙ্গে তাঁদের গেজেট প্রকাশ করা হবে।

জাগীর ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী জাকির হোসেন বলেন, ‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার বিষয়টি আমার কাম্য নয়। প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাধ্যমে জয়ী হওয়ার মধ্যে আত্মতৃপ্তির বিষয় জড়িত। তবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হলে আমি বিপুল ভোটে বিজয়ী হতাম। কারণ, ইউনিয়নের আমার অসংখ্য সমর্থক ও কর্মী রয়েছেন।’

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার ১০টি ইউপিতে ২৮ নভেম্বর ভোট গ্রহণ হবে। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪৮ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। তাঁদের মধ্যে দুজনের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়। এ ছাড়া সাতজন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

বর্তমানে গড়পাড়া ও জাগীর ইউনিয়নে দুজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় বাকি ৮টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৩৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এ ছাড়া সংরক্ষিত ওয়ার্ডে সদস্যপদে ১০৭ জন ও সাধারণ ওয়ার্ডে সদস্যপদে ৩৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন