default-image

মানিকগঞ্জে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় আবার মাঠে নেমেছে পুলিশ। আজ রোববার সকালে জেলা শহরে সচেতনতামূলক শোভাযাত্রা করা হয়েছে এবং জনসাধারণের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করেছে পুলিশ। এতে নেতৃত্ব দেন জেলা পুলিশ সুপার রিফাত রহমান।

‘মাস্ক পরার অভ্যেস, করোনামুক্ত বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে সকাল ১০টার দিকে জেলা শহরের ভাষাশহীদ রফিক চত্বরে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন পুলিশ সুপার রিফাত রহমান। তিনি বলেন, এখনো মহামারি শেষ হয়নি। করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার কারণ হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি না মানা। শুধু মাস্ক পরলে হবে না, সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়ার অভ্যাস চালু রাখতে হবে। দ্বিতীয় ধাপে করোনা মোকাবিলায় জেলার সাতটি থানার পুলিশের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মহীউদ্দীন, জেলা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) আবদুস সালাম, পৌর মেয়র মো. রমজান আলী, জেলা ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান, জেলা পরিষদের সদস্য ও কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার সালাম চৌধুরী, প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
default-image

এরপর তাঁরা জেলা শহরের শহীদ রফিক সড়কে সচেতনতামূলক শোভাযাত্রায় অংশ নেন। জেলা শহরে জনসাধারণের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করে পুলিশ। পাশাপাশি শহরের বিভিন্ন সড়কে মাইকে সচেতনতামূলক প্রচার চালানো হয়।

জেলায় আরও ৮ জনের করোনা শনাক্ত

মানিকগঞ্জে ২৪ ঘণ্টায় আরও আটজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ৮৭০। সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের চিকিৎসা কর্মকর্তা রফিকুন্নাহার বন্যা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২৪ ঘণ্টায় ৫৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে মানিকগঞ্জ কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়। আজ পাওয়া প্রতিবেদনে তাঁদের মধ্যে আটজনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। তাঁদের মধ্যে জেলা সদরে চারজন, ঘিওরে দুজন, হরিরামপুরে একজন ও সিঙ্গাইরে একজন রয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ পর্যন্ত জেলায় ১৬ হাজার ৯৫২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ১ হাজার ৮৭০ জনের করোনা শনাক্ত হয়। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ১ হাজার ৮০৯ জন সুস্থ হয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত জেলায় ৩২ জন মারা গেছেন।

জেলা সিভিল সার্জন আনোয়ারুল আমিন আখন্দ বলেন, জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনীহা ও মাস্ক ব্যবহার না করায় করোনা সংক্রমণের হার আবার বাড়ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন