বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অভিযান দলের সদস্যরা জানান, এ গুদামে পাওয়া এসব তেলের বোতল গত রমজান মাসে মজুত করে রাখা হয়েছে। সে সময় পাঁচ লিটার এক বোতল সয়াবিনের মূল্য ৭৯৫ টাকা। তবে বর্তমানে তেলের দাম বাড়ায় প্রতি পাঁচ লিটার সয়াবিনের মূল্য ৯৯০ টাকা। তবে বোতলে পূর্বের ওই মূল্য লেখা থাকায় ক্রেতাদের কাছে তা বিক্রি না করে খুলে বিক্রি করা হয়। এতে প্রতি লিটার তেলে ২০ টাকা হারে অতিরিক্ত লাভে বিক্রি করা হচ্ছে। এ কারণে কালীপদ অ্যান্ড সন্সের গুদামে অবৈধভাবে মজুত করার দায়ে প্রতিষ্ঠানটির মালিক নিরঞ্জন বণিককে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানে জেলা ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক সামছুন্নবী তুলিপ ও সদর থানার পুলিশ সদস্যরা সহযোগিতা করেন।

জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল বলেন, বাজারে সয়াবিন তেলের বেশ চাহিদা রয়েছে। এরপরও ওই ডিলার বাজারে তেল বিক্রি না করে অবৈধভাবে মজুত করে খোলাবাজারে বিক্রি করে আসছিলেন। কৃত্রিম সংকট তৈরি না করতে ও তেলে সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে ওই বাজারের ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। পরে মজুত করা এসব তেল ক্রেতাদের মধ্যে ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন