default-image

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবাকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার পর আওয়ামী লীগ নেতাদের প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোনায়েম খান আজ শুক্রবার আলফাডাঙ্গা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে আলফাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, অভিযোগটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ওলিয়ার রহমান গোপালপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। হেফাজতে ইসলামের রাজনীতিতে জড়িত ব্যক্তিদের সঙ্গে আত্মীয়তার সম্পর্ক গড়ার বিষয়টি গোপন রাখায় কেন তাঁকে দলের কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হবে না, জানতে চেয়ে ১২ এপ্রিল কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ।

নোটিশে ওলিয়ার রহমানকে কেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হবে না, এর স্বপক্ষে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দেওয়ার অনুরোধ করা হয়।

জিডিতে মোনায়েম খান উল্লেখ করেন, ওলিয়ার রহমানের পরিবার হেফাজতের সঙ্গে জড়িত থাকায় আওয়ামী লীগের কর্মপরিকল্পনা ফাঁস হওয়ার আশঙ্কা থাকায় ১২ এপ্রিল ওলিয়ার রহমানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। ওই নোটিশ দেওয়ার পরদিন ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা আনুমানিক সাড়ে ছয়টা থেকে শুরু করে সাতটার মধ্যে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি তিনটি নম্বর থেকে তাঁর ব্যক্তিগত নম্বরে ফোন করে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং জীবননাশের হুমকি দেন। এ ছাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ফরিদ উদ্দিনের মুঠোফোন নম্বরে আরেকটি নম্বর থেকে ফোন করে মামুনুল হক পরিচয় দিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং জীবননাশের হুমকি দেন।

বিজ্ঞাপন

১২ এপ্রিল কারণ দর্শানোর নোটিশে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে বলা হয়, ‘আপনি মো. ওয়ালিয়ার রহমান, গোপালপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। আপনার বড় জামাতা মো. হাবিবুর রহমান, মেজ জামাতা অর্থাৎ জান্নাত আরা ঝর্ণার সাবেক স্বামী মো. জাফর শহিদুল ইসলাম, সর্বাধিক সমালোচিত আপনার মেজ মেয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণার কথিত স্বামী মো. মামুনুল হকসহ সবাই উগ্রপন্থী ইসলামি সংগঠনের (হেফাজতে ইসলাম) সঙ্গে জড়িত। এমনকি আরও জানা যায় যে আপনার স্ত্রীও জামায়াতপন্থী।’

নোটিশে ওলিয়ার রহমানকে কেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হবে না, এর স্বপক্ষে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব দেওয়ার অনুরোধ করা হয়।

এ ব্যাপারে ওলিয়ার রহমানের স্ত্রী শিউলি বেগম আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর স্বামী আজই কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব দিয়েছেন। তিনি বলেন, এ নোটিশ পাওয়ার পর থেকেই তাঁর স্বামী ভেঙে পড়েছেন। তাঁর স্বামীকে হয়রানি করার উদ্দেশ্যে কারণ দর্শানো নোটিশ কিংবা এ জিডি করা হয়েছে। এ ঘটনায় তাঁর স্বামীর কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন