default-image

হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণসহ পৃথক ৩ মামলায় ২৪ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছে পুলিশ। আজ রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ুন কবীরের আদালতে রিমান্ডের এ আবেদন করা হয়। এ বিষয়ে ৯ মে শুনানির দিন ধার্য করেছেন আদালত।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, এক নারীর করা নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে ধর্ষণের মামলায় হেফাজত নেতা মামুনুল হককে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে। এ ছাড়া সোনারগাঁয়ে রয়্যাল রিসোর্টে হামলা ও ভাঙচুরের মামলা এবং সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় মামুনুল হককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিন করে মোট ১৪ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে।

এসপি জায়েদুল আলম আরও বলেন, সোনারগাঁয়ে রিসোর্টের ওই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দুটিসহ মোট আটটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ওই তিন মামলায় মামুনুল হক এজাহারভুক্ত আসামি। এসব মামলায় মামুনুল হককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মোট ২৪ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। আদালতের আদেশ অনুযায়ী তাঁরা মামলার বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

বিজ্ঞাপন

নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান বলেন, তিন মামলায় আজ মামুনুল হকের বিরুদ্ধে পুলিশের ২৪ দিনের রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানি হয়েছে। আদালত ৯ মে রিমান্ড শুনানির তারিখ ধার্য করেছেন। ওই দিন ভার্চ্যুয়াল কোর্টে জেলহাজত থেকে আসামির বক্তব্য শুনে আসামি গ্রেপ্তার ও রিমান্ড শুনানির বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ করবেন আদালত। ভার্চ্যুয়াল কোর্ট না থাকলে আসামিকে সশরীর আদালতে হাজির করা হলে শুনানির বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ করবে বলে আদালত আদেশ দিয়েছেন।

গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ে রয়্যাল রিসোর্টের একটি কক্ষে এক নারীসহ হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ করেন স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুল হককে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। এ সময় খবর পেয়ে হেফাজতের নেতা–কর্মী ও মাদ্রাসার ছাত্ররা ওই রিসোর্টে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়ে তাঁকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেন। পরে হেফাজতের নেতা–কর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহন ভাঙচুর করেন। এ সময় তাঁরা মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়েও ভাঙচুর করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন