বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান প্রথম আলোকে জানান, ধর্ষণের মামলায় মামুনুল হকের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য ছিল। কিন্তু মামুনুল হককে গাজীপুর কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগার থেকে না পাঠানোয় সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ পিছিয়ে ২৩ নভেম্বর ধার্য করেছেন আদালত।

নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি রকিব উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামুনুল হককে না পাঠানোয় সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ পিছিয়েছে।

চলতি বছরের ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ের রয়্যাল রিসোর্টের একটি কক্ষে হেফাজতে ইসলামের তৎকালীন কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ করেন ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতা–কর্মীসহ স্থানীয় লোকজন। পরে পুলিশ গিয়ে মামুনুল হককে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় খবর পেয়ে হেফাজতের কর্মী ও মাদ্রাসার ছাত্ররা ওই রিসোর্টে ভাঙচুর চালিয়ে তাঁকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেন।

পরে হেফাজতের নেতা-কর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভাঙচুর করেন। তাঁরা মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করেন। ভাঙচুর করেন বেশ কিছু যানবাহন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ভাঙচুর করা হয়। পুলিশ গিয়ে তাঁদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে হেফাজতের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার পাশাপাশি সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ চার শতাধিক শটগান ও টিয়ার গ্যাসের শেল ছুড়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এই ঘটনায় হেফাজতের কর্মী মোহাম্মদ ফয়সাল বাদী হয়ে মামুনুল হককে হেনস্তা করার অভিযোগে যুবলীগ-ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ স্থানীয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সোনারগাঁয় লিখিত অভিযোগ দেন।

নারীসহ রয়্যাল রিসোর্টে হেফাজত নেতা মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করা ও সহিংস ঘটনার কারণে সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়। একই সঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টি এম মোশাররফ হোসেনকে বদলি করা হয়। ওই ঘটনার ২৭ দিন পর সোনারগাঁ থানায় হাজির হয়ে কথিত স্ত্রী জান্নাত আরা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেন।

এর আগে ১৮ এপ্রিল মামুনুল হককে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে ঢাকা মহানগর তেজগাঁও বিভাগের পুলিশ গ্রেপ্তার করে। ৩০ এপ্রিল মামুনুল হকের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানায় করা মামলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন তাঁর কথিত স্ত্রী জান্নাত আরা। ওই মামলায় পুলিশ তদন্ত করে ১০ সেপ্টেম্বর প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ পেয়েছে উল্লেখ করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আদালত শুনানি শেষে আসামি মামুনুল হকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন