বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গঙ্গাচড়া বাজারে একটি চায়ের দোকানের সামনে জটলা করে অনেকে গল্প করছিলেন। ভোট নিয়ে কী ভাবনা? জিজ্ঞেস করলে তাঁরা বলেন, এবার ভোটাররা ভাগ হয়ে পড়েছেন। তাই প্রতীকটা মুখ্য ব্যাপার নয়। ব্যক্তি দেখে মানুষজন ভোট দেবেন।

ব্যবসায়ী নিরঞ্জন রায় বলেন, ‘হামার অ্যাটে মানুষজন ভালোই আছলো। কিন্তু ভোটোত আসিয়া ভাগ করি ফেলাইছে। একই দলোত (আওয়ামী লীগের) তিনজন প্রার্থী। তাইলে মার্কার দাম থাকিল না।’

বাজারের মুদিদোকানদার সাজু মিয়া বলেন, ‘হামরা ভালো মানুষ দেখি ভোট দিমো।’
দুপুরে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মাহফুজার রহমান গঙ্গচড়া বাজারে প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ সুন্দর ও শান্ত থাকলে জাতীয় পার্টির বিজয় হবে।

মৌলভীবাজার এলাকায় গিয়ে দেখা গেল, ভোটাররা আলোচনা করছেন কোন এলাকায় কোন প্রার্থীর অবস্থান ভালো। সেখানে কৃষক অলিয়ার মিয়া বলেন, ‘মার্কা দিয়া লাভ নাই, মানুষ দেখা লাগবে। মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো, তাঁর ভালো হইবে।’

এলাকার আরও কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আগে ইউনিয়নের সর্বত্র কিছুটা উত্তেজনা ছিল। এখন সেই উত্তেজনা অনেকটা কমে এসেছে। দলীয় প্রভাব বিস্তার খুব একটা হবে না বলে ধারণা করছেন তাঁরা। নির্বাচনী পরিবেশ ভালো থাকার কথা।

গঙ্গাচড়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আয়নুল হক বলেন, এখন পর্যন্ত নির্বাচনের পরিবেশ সুন্দর রয়েছে। কোনো প্রার্থীর পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগও পাওয়া যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন