default-image

সন্তানের প্রতি মায়ের ভালোবাসায় কখনো কমতি হয় না। শিশুকাল থেকে কোলেপিঠে করে সন্তানকে বড় করে তোলেন মা। আগলে রাখেন আঁচলে। কিন্তু চাকরি পাওয়ার পরও মায়ের আঁচলের গভীর ভালোবাসায় আছেন কুষ্টিয়ার মো. মালেক শেখ (২৯)। কারণ, তিনি শারীরিকভাবে চলাচল করতে অক্ষম। মায়ের কোলে চড়েই তাই তিনি কর্মস্থলে যান।

মালেক শেখের বাড়ি মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার ভবেরপাড়া গ্রামে। তিনি কুষ্টিয়া পরিবেশ অধিদপ্তরে ডেটা এন্ট্রি পদে চাকরি করেন। থাকেন শহরের চৌড়হাস ওয়ার্ডের উকিলপাড়ায়।

গত বৃহস্পতিবার সকাল নয়টায় উকিলপাড়ায় দেখা গেল, মালেক শেখ মায়ের কোলে চড়ে বের হচ্ছেন। তাঁর হাতে একটা ফাইল। জানতে চাইলে মা কুরাতন বেগম বলেন, ছেলেকে অফিসে পৌঁছে দিতে যাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, প্রতিদিন তিনি তাঁর সন্তানকে প্রধান সড়ক পর্যন্ত পৌঁছে দেন। রিকশা বা ইজিবাইকে তুলে দিয়ে বাসায় ফেরেন। পরে বিকেলে আবার অফিসে গিয়ে ছেলেকে নিয়ে আসেন।

বিজ্ঞাপন

কথা প্রসঙ্গে কুরাতন বেগম জানালেন, তাঁর তিন ছেলেমেয়ে। মালেক শেখ সবার ছোট।

জন্ম থেকেই তিনি শারীরিক প্রতিবন্ধী। দুটো

পা–ই বাঁকা। একা চলাফেলা করতে পারেন না। মাধ্যমিক পরীক্ষায় জিপিএ ৪ দশমিক ৬ পেয়েছিলেন তিনি। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায়

উত্তীর্ণ হন জিপিএ–৫ পেয়ে। এরপর মেহেরপুর সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক পাস করেন।

মালেক জানান, তাঁর কেবল পায়েই সমস্যা নয়, হাতেও সমস্যা আছে। হাত উঁচু করতে পারেন না। এ কারণে মা–ই তাঁকে গোসল করিয়ে দেন। অফিসে হুইলচেয়ারে বসে কাজ করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন