default-image

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে জমি নিয়ে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে উপজেলা জামায়াতের আমির মাওলানা আবদুল মান্নান (৫৫) নিহত হয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার দেউলী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় আবদুল মান্নানকে বাঁচাতে এসে তাঁর ছেলেরাসহ পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত ব্যক্তিরা হলেন নিহত আবদুল মান্নানের ছেলে সাইদুল (২৪) ও হাসিব (২০), চাচাতো ভাই আজহার (৭০), আজহারের ছেলে কামাল (২৩) এবং মান্নানের আরেক ভাতিজা শাকির (৪০)। আহত লোকজনকে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আবদুল মান্নানের বংশীয় চাচাতো ভাই কেতাব আলী (৬৫) ও তাঁর ছেলে মো. লিটনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আবদুল মান্নান দেউলী গ্রামের মৃত রফেজ উদ্দীন হাওলাদারের ছেলে। তিনি পশ্চিম সুবিদখালী ছালিয়া আলিম মাদ্রাসার আরবি বিষয়ের প্রভাষক ছিলেন।

কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে কেতাব আলী (৬৫) ও তাঁর ছেলে লিটন (২৮), শিপন (২৬), সজল (২৪), শাওন (১৮), ছাব্বির (১৬) ও রাব্বি (১৪) দা ও ছোরা নিয়েরা আবদুল মান্নানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপান।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকাল ৯টার দিকে মাওলানা আবদুল মান্নান বাড়ির পুকুরের পাশে বিরোধপূর্ণ জমিতে একটি খড়ের গাদা স্থাপন ও রাস্তা প্রশস্ত করার জন্য মাটি কাটতে গেলে একই বাড়ির কেতাব আলী ও তাঁর ছেলেরা বাধা দেন। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে কেতাব আলী ও তাঁর ছেলেরা আবদুল মান্নানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। তাঁকে বাঁচাতে এলে তাঁর ছেলে সাইদুল ও হাসিব, চাচাতো ভাই আজাহার ও শাকির ও ভাতিজা কামাল গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবদুল মান্নানকে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় অন্যদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

বিজ্ঞাপন

নিহত ব্যক্তির বড় ভাই আবদুল লতিফ হাওলাদার প্রথম আলোকে বলেন, পুকুর পাড়ে একটি খড়ের গাদা তৈরি করার সময় তাঁদের বাড়িরই কেতাব আলী ও তাঁর ছেলে লিটন (২৮), শিপন (২৬), সজল (২৪), শাওন (১৮), ছাব্বির (১৬) ও রাব্বি (১৪) দা ও ছোরা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়।

মির্জাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম জানান, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত কেতাব আলী ও তাঁর ছেলে লিটনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালীর মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন