বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, গতকাল দুপুরে ওই কিশোরের বাবা থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। লিখিত অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, তাঁর ছেলে গতকাল সকাল আটটার দিকে প্রতিদিনের মতো কোচিং সেন্টারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। সকাল ৯টার দিকে তাঁর ছেলের মুঠোফোন নম্বর থেকে তাঁকে ফোন করে বলা হয়, ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে। মুক্তিপণ হিসেবে ৩০ হাজার টাকা না দিলে তাঁর ছেলেকে খুন করা হবে। মুক্তিপণের টাকা বিকাশে পাঠাতে বলা হয়।

এসআই রাশেদুল ইসলাম বলেন, এমন অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। পরে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে পুলিশ জানতে পারে, অপহরণকারীদের দেওয়া বিকাশ নম্বরটি বাদীর ছেলের বন্ধুর নম্বর। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর ওই কিশোরের বন্ধুকে রাজিবকে আটক করে থানায় ডেকে নিয়ে আসা হয়। পরে কৌশলে বন্ধুকে দিয়ে কল করে ওই কিশোরকেও আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তরিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, মুঠোফোন কেনার জন্য ওই কিশোরই মূলত অপহরণের নাটক সাজিয়ে বন্ধুকে দিয়ে তার বাবার কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবি করেছিল। পরে মুক্তিপণের টাকা কমিয়ে সাত হাজার টাকা দাবি করা হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাই কিশোর। তারা স্কুলে পড়াশোনা করে। তাই তাদের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন