বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে আটটায় লাম্বাশিয়া আশ্রয়শিবিরের ডি ব্লকের আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস (এআরএসপিএইচ) সংগঠনের কার্যালয়ে ঢোকার সময় বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত হন মুহিবুল্লাহ (৪৮)। তিনি ওই সংগঠনের চেয়ারম্যান ছিলেন। ৩০ সেপ্টেম্বর রাতে উখিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেন মুহিবুল্লাহর ছোট ভাই হাবিবুল্লাহ।

এ ঘটনায় ১ অক্টোবর সকালে উখিয়ার লাম্বাশিয়া ১-ইস্ট নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থেকে মো. সলিমকে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) এবং মধুরছড়া ৩ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি-১৫ ব্লক থেকে শওকত উল্লাহকে উখিয়া থানা-পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

২ অক্টোবর ভোররাতে লাম্বাশিয়া ১-ইস্ট নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এ-১৫ ব্লক থেকে আবদুস সালাম (৩২) কে, ৮-ডব্লিউ কুতুপালং ক্যাম্প থেকে জিয়াউর রহমানকে (৩০) গ্রেপ্তার করে এপিবিএন। ৩ অক্টোবর কুতুপালং ৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে মো. ইলিয়াসকে (৩৫) গ্রেপ্তার করে এপিবিএন। গ্রেপ্তার পাঁচজন মিয়ানমারের সশস্ত্র সংগঠন ‘আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি’র (আল ইয়াকিন নামেও পরিচিতি) সক্রিয় সদস্য ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উখিয়ার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কার্তিক চন্দ্র পাল বলেন, মুহিবুল্লাহ হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছেন পাঁচজন। এর মধ্যে আজ তিনজনের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন