বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, কমিটির আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম গত পৌর নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী ছিলেন। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে প্রার্থিতা মনোনয়নের সভায় পৌরসভার ওয়ার্ড বিএনপির ১৮ জন সভাপতি-সম্পাদক তাঁকে মনোনয়ন না দেওয়ার সুপারিশ করে ত্যাগ করেন। তাঁকে জনবিচ্ছিন্ন আখ্যায়িত করে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়। অথচ তাঁকে কেন গুরুত্বপূর্ণ একটি পদে রাখা হলো, তা নেতা–কর্মীদের কাছে বোধগম্য নয়।

পৌর তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবদুল কুদ্দুস ১৪ মাস আগে মৃত্যুবরণ করেছেন। তাঁকে ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির ১৮ নম্বর সদস্য করা হয়েছে।

আহ্বায়ক কমিটিতে জিল্লুর রহমানকে সদস্যসচিব করা হয়েছে। অথচ তাঁর বিএনপির সদস্যপদও ছিল না। তিনি বিএনপি করেন, তা দলের কোনো নেতা–কর্মী বলতেও পারবেন না। ব্যবসায়িক কাজে তিনি বছরের অধিকাংশ সময় সৌদি আরবে থাকেন। তাঁকে সদস্যসচিব করাতে সবাই বিস্মিত হয়েছেন। নতুন কমিটিতে আবদুল বারীকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। অথচ সাত থেকে আট মাস আগে তাঁকে পৌর যুবদলের আহ্বায়ক করা হয়েছে। সাহানুর রহমান নামের একজনকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। দলে কখনো তাঁর সদস্যপদও ছিল না।

সংবাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করা হয়, পৌর তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবদুল কুদ্দুস ১৪ মাস আগে মৃত্যুবরণ করেছেন। এটা দায়িত্বশীল নেতারা জানেন না। তাই তাঁকে ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির ১৮ নম্বর সদস্য করা হয়েছে। অথচ গত কমিটির সহসভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদককে ঘোষিত কমিটিতে সদস্য হিসেবেও রাখা হয়নি; যাঁরা পৌর বিএনপির সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক হওয়ার যোগ্যতা রাখেন।

পৌর বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীনুর আলম বলেন, দায়িত্বশীল নেতাদের কাছে এর ব্যাখ্যা চাইলে তাঁরা বলেছেন, এই কমিটি নাকি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নির্দেশে করা হয়েছে। এটা গোপালপুরের বিএনপি নেতা–কর্মীরা বিশ্বাস করে না। তিনি এ ধরনের কমিটি উপহার দিতে পারেন না। প্রকৃতপক্ষে তাঁকে ভুল বুঝিয়ে ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঘোষিত কমিটি বাতিল করে নেতা–কর্মীদের মতামত নিয়ে অবিলম্বে নতুন কমিটি গঠনের দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পৌর বিএনপির সাবেক সহসভাপতি বুলবুল খান, সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাহাবুবুর রহমান, পৌর বিএনপির সদস্য দুলাল উদ্দিন, তৌহিদুর রহমান, আবদুল হালিম প্রমুখ।

অভিযোগের বিষয়ে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আমিনুল হক বলেন, স্থানীয়ভাবে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। অনেক আগে নাম প্রস্তাব করার কারণে ইতিমধ্যে কেউ কেউ মারা যেতে পারেন। তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের সময় ভুলত্রুটিগুলো সংশোধন করা হবে। বাদ যাওয়া নেতা–কর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন