পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মামলায় হালিশহর টিজি কলোনি এলাকার ভাঙারি দোকানি মো. সিদ্দিক ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকার মেডিকেল বর্জ্য পরিবহনে নিয়োজিত চট্টগ্রাম সেবা সংস্থার স্বত্বাধিকারী জমির উদ্দিনকে আসামি করা হয়। এর আগে গতকাল বুধবার হালিশহর আনন্দ বাজার ও টিজি কলোনি এলাকায় পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক হিল্লোল বিশ্বাসের নেতৃত্বে একটি দল অভিযানে যায়। এ সময় তারা পরিশোধনের জন্য নেওয়া মেডিকেল বর্জ্য ভাঙারি দোকানে দেখতে পায়। পরে সিদ্দিক ও জমির উদ্দিনকে নোটিশ দেয় পরিবেশ অধিদপ্তর।

নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার চট্টগ্রামের পরিবেশ অধিদপ্তর কার্যালয়ে শুনানিতে অংশ নেন ওই দুজন। শুনানিতে মেডিকেল বর্জ্য অপসারণে অবহেলার বিষয়টি স্বীকার করেন তাঁরা। ভাঙারি দোকানের মাধ্যমে সিদ্দিক এগুলো বিক্রি করেন বলে স্বীকার করেন।

পরিবেশ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মিয়া মাহমুদুল হক বলেন, শুনানিতে দোষ স্বীকার করার পর ওই দুজনের বিরুদ্ধে চিকিৎসা বর্জ্য (ব্যবস্থাপনা ও প্রক্রিয়াজাতকরণ) বিধিমালা ২০০৮ অনুযায়ী মামলা করা হয়।

এদিকে পাহাড় কাটার অভিযোগে বৃহস্পতিবার তিনজনের বিরুদ্ধে নগরের আকবরশাহ থানায় দুটি মামলা করা হয়েছে। ইস্পাহানি এলাকায় সাবিহা ইয়াছমিন ও জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়। অপর মামলা হয়েছে ফয়েজ লেক ২ নম্বর এলাকায় জাফর আহমদের বিরুদ্ধে। দুটি মামলায় বাদী হয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তরের পরির্দশক মনির হোসেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন