নিশীথের জ্যাঠা দক্ষিণা রঞ্জন প্রামাণিক ভেলাকোপার পুরোনো বাসিন্দাদের একজন। শনিবার মুঠোফোনে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘নিশীথের বাবার নাম বিধু ভূষণ প্রামাণিক। তিনি দেশভাগের আগে ভারতের কোচবিহারে পাড়ি জমান। সেখানে বিয়ে করে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। বিধু ভূষণের একমাত্র সন্তান নিশীথ। আগেই ভারতের সাংসদ হয়েছেন নিশীথ। এবার মন্ত্রিসভায় জায়গা করে নিলেন। মাত্র ৩৫ বছর বয়সে এত অর্জন! প্রতিক্রিয়া জানানোর ভাষা আমাদের জানা নেই।’

২০১৮ সালে ঢাকায় এসেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিক নিশীথ প্রামাণিক। ওই সময় তিনি ভেলাকোপায় বাপ-দাদার ভিটায় বেড়াতে এসেছিলেন। সময় কাটিয়েছেন এখানে বসবাস করা আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে। ব্যক্তিগত জীবনে দুই সন্তানের জনক নিশীথ প্রামাণিক।

নিশীথের প্রতিমন্ত্রী হওয়ার খবর শুনে ভীষণ উচ্ছ্বসিত সঞ্জিত কুমার প্রামাণিক। সম্পর্কে তিনি নিশীথের জ্যাঠাতো ভাই। সঞ্জিত জানান, কম্পিউটার বিষয়ে স্নাতক করেছেন নিশীথ। লেখাপড়া শেষে শিক্ষকতা পেশায় যুক্ত হন। কিছুদিন পরে শিক্ষকতা ছেড়ে দেন। শুরু করেন রাজনীতি। কোচবিহারে তাঁর জনপ্রিয়তা রয়েছে। শুরুতে তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলার যুব সেক্রেটারি ছিলেন। সঞ্জিত বলেন, ‘নিশীথ ভারতের প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় আমরা খুবই খুশি।’

ভেলাকোপা গ্রামের বাসিন্দা মোতাহার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘নিশীথ প্রামাণিক ভারতের মন্ত্রিসভায় জায়গা পেয়েছেন। এ কারণে ভেলাকোপার মানুষ খুবই আনন্দিত। নিশীথ প্রামাণিক তাঁর যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তার মূল্যায়ন পেয়েছেন।’

পলাশবাড়ী উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘নিশীথ ছোটবেলা থেকেই মেধাবী ও আত্মবিশ্বাসী।’