default-image

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের টিকোরী গ্রামে নবম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীর (১৪) বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এই বাল্যবিবাহ বন্ধে জাতীয় জরুরি সেবাকেন্দ্রের ৯৯৯ নম্বর ফোন করেছিলেন এক প্রতিবেশী। বিয়ে বন্ধে ঘটনাস্থলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পৌঁছানোর আগেই বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যায়। পরে মেয়েকে দ্রুত শ্বশুরবাড়ি পাঠিয়ে দেন পরিবারের লোকজন।

বাল্যবিবাহ দেওয়ার দায়ে কনের বাবা মো. আবুল হোসেন ও ভাই মো. মোক্তার হোসেনকে আটক করে পুলিশ। সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে মেয়ের বাবাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই সঙ্গে মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বাবার বাড়িতেই থাকবে মর্মে মুচলেকা নেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গুরুদাসপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবু রাসেল বলেন, মেয়েটির সঙ্গে সিংড়া উপজেলার ফারুক হোসেন (২৪) নামের এক যুবকের বিয়ে হয়েছে। জুমার নামাজের পরপরই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের নজর এড়াতে দ্রুতই কনেকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় শ্বশুরবাড়ি।

মন্তব্য পড়ুন 0