বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আটকের পর দালাল চক্রের সদস্যদের ভ্রাম্যমাণ আদালত সাজা দেন। আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মনোরঞ্জন বর্মণ। মনোরঞ্জন বর্মণ জানান, আটক ১৪ জনের মধ্যে অভিযুক্ত ১১ জনকে ১১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। এ ছাড়া অপর ৩ জন মোটর মালিক সমিতি ও মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত হওয়ায় তাঁদের মুচলেকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

মেজর আখের মোহাম্মদ জানান, আটক ব্যক্তিরা দীর্ঘদিন ধরে বিআরটিএ কার্যালয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও গাড়ির ফিটনেস সনদ পাইয়ে দেওয়ার নামে সাধারণ গাড়িচালক ও মালিকদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করে আসছিলেন।

বিআরটিএ ময়মনসিংহ কার্যালয়ের মোটরযান পরিদর্শক সাইফুল কবীর বলেন, ময়মনসিংহ কার্যালয়ের ভেতরে কোনো ধরনের দালালের সম্পৃক্ততা নেই। যাঁরা আটক হয়েছেন, তাঁরা সাধারণ মানুষের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে বিআরটিএ কার্যালয়ের বাইরে অপতৎপরতা চালিয়ে আসছিলেন। লাইসেন্স, ফিটনেস সনদ ও নবায়নের ক্ষেত্রে যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন