চিনাডুলী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুস সালাম প্রথম আলোকে বলেন, পুরো ইউনিয়ন বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। প্রায় ২০ হাজার মানুষ বর্তমানে পানিবন্দী অবস্থায় আছেন। এই দুর্ভোগ চলছে পাঁচ দিন ধরে। মানুষের নেই তেমন কোনো কাজকর্ম। এসব এলাকার মানুষ দিন আনে দিন খায়। পাঁচ দিন ধরে ঘরে বসা তাঁরা। সবার খাদ্যসংকট দেখা দিয়েছে। এত মানুষের মধ্যে মাত্র ৩ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ওই চাল ৪০০ বন্যার্তদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণসামগ্রীর প্রয়োজন। শুধু চাল দিলেই হবে না। তার সঙ্গে অন্যান্য উপকরণও দিতে হবে।

জামালপুর জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো.আলমগীর হোসাইন বলেন, বন্যার্তদের জন্য এরই মধ্যে সারা জেলায় ৩৫০ মেট্রিক টন চাল, ৭ লাখ টাকা ও ৪ হাজার শুকনো খাবারের প্যাকেট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এই ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন