default-image

তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় আজিজুল হক (৪৫) নামে পুলিশের একজন কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে যশোর থেকে তাঁকে আটক করা হয়। পরে রাত ১০টার দিকে যশোর কোতোয়ালি থানায় করা ধর্ষণের মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

আজিজুল হক পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) পদে কর্মরত। তিনি ঢাকার আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) থেকে পুলিশের খুলনা রেঞ্জে বদলি হয়েছেন। এখনো যোগদান করেননি। তাঁর বাড়ি সাতক্ষীরার তালা উপজেলার সুরুরিয়া গ্রামে। তিনি যশোর সদর উপজেলায় থাকেন।

বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালে আজিজুল হকের সঙ্গে ওই নারীর বিয়ে হয়। ২০২১ সালে তাদের বিয়েবিচ্ছেদ হয়ে যায়। এর মধ্যে আজিজুল ২০২০ সালে সাতক্ষীরায় আরেকটি বিয়ে করেন আজিজুল। গত শুক্রবার রাত একটার দিকে আজিজুল বাদীর বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করেন। বাদী কৌশলে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল করে পুলিশের সাহায্য চান। পরে কোতোয়ালি থানার পুলিশ গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে। আজিজুলকে আটক করে পুলিশ।

যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘আজিজুল ধর্ষণ করেছেন অভিযোগে তাঁর তালাক দেওয়া স্ত্রী মামলা করেছেন। ওই মামলায় আজিজুলকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।’ ওসি আরও বলেন, ৯৯৯-এ কল পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে আজিজুলকে আটক করা হয়। কিন্তু ওই নারী মামলা করতে রাজি ছিলেন না। তিনি আপস করে আর্থিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু ধর্ষণের অভিযোগ আপসযোগ্য না। সেই কারণে মামলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন