default-image

যশোর পৌরসভার উপসহকারী প্রকৌশলী মো. সাইফুজ্জামানকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সড়কে বৈদ্যুতিক বাতি লাগানোয় অবহেলাকে কেন্দ্র করে এক কাউন্সিলরের সহযোগীরা তাঁকে লাঞ্ছিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে পৌরসভার বিদ্যুৎ শাখায় এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি মৌখিকভাবে পৌরসভার মেয়র হায়দার গণী খানকে জানানো হয়েছে। বিষয়টি আগামীকাল বুধবার পৌরসভার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়রকে জানাবেন।

কাউন্সিলর রাজিবুল আলমের অনুসারী বিপ্লবের নেতৃত্বে কয়েকজন বিদ্যুৎ শাখায় গিয়ে উত্তেজিত হয়ে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে একজন প্রকৌশলী সাইফুজ্জামানের গালে থাপ্পড় মারেন।

পৌরসভার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কয়েক দিন ধরে যশোর পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় পৌরসভার ব্যয়ে স্থাপিত বেশ কিছু বৈদ্যুতিক বাতি নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজিবুল আলমের অনুসারী বিপ্লবের নেতৃত্বে কয়েকজন বিদ্যুৎ শাখায় গিয়ে এ বিষয়ে কথা বলেন। এ সময় উভয় পক্ষ উত্তেজিত হয়ে কথা-কাটাকাটি শুরু করেন। একপর্যায়ে একজন সাইফুজ্জামানের গালে থাপ্পড় মারেন। ঘটনা শুনে কাউন্সিলর রাজিবুল তাৎক্ষণিক সেখানে গিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে উভয় পক্ষের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা করেন।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পৌরসভার বিদ্যুৎ বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী সাইফুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কাউন্সিলর রাজিবুল আলমের লোকজন বিদ্যুৎ শাখায় গিয়ে কর্মচারীদের সঙ্গে অকথ্য ভাষার কথা বলেন। প্রতিবাদ করলে তাঁদের একজন আমার গালে অতর্কিত থাপ্পড় মারেন। বিষয়টি পৌর মেয়রকে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। কাল কর্মকর্তা–কর্মচারীরা আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়রকে জানাবেন। এরপর নতুন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বিপ্লবের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। কাউন্সিলর রাজিবুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে বৈদ্যুতিক বাতি লাগানো নিয়ে বিদ্যুৎ শাখায় গিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের কথা-কাটাকাটি হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে উভয় পক্ষের মধ্যে চলা এ বিরোধ মিটিয়ে দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন