বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বক্তব্যের শেষের দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে আবু সাঈদ বলেন, ‘আপনারা সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আর বিএনপি যাঁরা করেন, উনাদের বলবেন, ইজ্জত বাঁচানোর স্বার্থে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে নিজেকে যেন মানুষ হিসেবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করেন।’

এ বিষয়ে রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনসারুল হক বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন সর্বত্রই তাঁদের কর্মী-সমর্থকদের হুমকি দিচ্ছেন। এতে তাঁরা আতঙ্কের মধ্যে আছেন। তিনি অভিযোগ করেন, গত ইউপি নির্বাচনে জয়লাভের পরও ফলাফল পাল্টে আওয়ামী লীগের বর্তমান প্রার্থীকে জয়ী দেখানো হয়েছিল। এবারের নির্বাচনেও তাঁরা সেই কাজটি করবে বলে শঙ্কায় আছি। নির্বাচনী সভায় আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন সব বক্তব্য, সেটারই ইঙ্গিত দেয়। বিষয়টি নিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

পথসভায় দেওয়া বক্তৃতার বিষয়ে জানতে চাইলে রুহিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ প্রথম আলোকে মুঠোফোনে বলেন, ‘রুহিয়া উপজেলা বাস্তবায়ন হবে, এটা সবার চাওয়া। আমার অভিভাবক রমেশ চন্দ্র সেন (ঠাকুরগাঁও–১ আসনের সাংসদ) রুহিয়া উপজেলা বাস্তবায়নের চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এবারের নির্বাচনে সব ইউপিতে নৌকা জয়লাভ করলে আমাদের দাবি জোরালো হয়। রুহিয়া উপজেলার দাবির পক্ষে এসব বলে ফেলেছি।’

২৬ ডিসেম্বর রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এতে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচন করছেন অনিল কুমার সেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন