বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা যাতায়াত পরিবহনের একটি বাস কিশোরগঞ্জের দিকে যাচ্ছিল। বাসটি ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ধরে বারৈচা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পৌঁছার আগমুহূর্তে কয়েকজন যাত্রীর সঙ্গে বাসচালকের ভাড়া নিয়ে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তীব্র বাগ্‌বিতণ্ডা শুরু হলে বাসচালক বারৈচা বাসস্ট্যান্ডে বাসটি থামান। এ সময় চালক ও যাত্রীদের কথা-কাটাকাটি দেখতে আতিকুলসহ আশপাশের লোকজন বাসটির সামনে জড়ো হয়।

এ সময় বাসচালক হঠাৎ বাসটি চালানো শুরু করলে আতিকুল ওই বাসের নিচে চাপা পড়ে। এতে তার মাথা ওই বাসের চাকার নিচে চলে যায় এবং ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয় লোকজন উত্তেজিত হয়ে ওই বাসের চালককে আটক করেন।

খবর পেয়ে ভৈরব হাইওয়ে থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত কিশোরের লাশ উদ্ধার করে ভৈরব হাইওয়ে থানায় নিয়ে যায়। একই সঙ্গে ওই বাসচালককে আটক করে পুলিশ।

ভৈরব হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হোসেন জানান, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে বাসটি জব্দ করেছি এবং এর চালককে আটক করেছি। আজ সকালে নিহত কিশোরের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এই দুর্ঘটনায় নিহত কিশোরের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন