যুক্তরাজ্যের বাজারে যাবে মাসুমার গরুর মাংসের আচার

বগুড়ার নারী উদ্যোক্তা মাসুমা ইসলামের হাতে ঋণের কাগজপত্র তুলে দেন রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের বগুড়া উত্তর জোনের ব্যবস্থাপক শিশির কুমার রায় ও দক্ষিণ জোনের ব্যবস্থাপক আবদুল আলিম। বুধবার বগুড়া শহরের কইগাড়ি এলাকায়।
ছবি: সংগৃহীত

করোনার সংকটেও অনলাইনে গরুর আচার বিক্রি করে সফল বগুড়ার সেই নারী উদ্যোক্তা মাসুমা ইসলাম (২৬) এবার যুক্তরাজ্যের বাজারে তাঁর পণ্য রপ্তানির প্রস্তাব পেয়েছেন।

এদিকে মাসুমার এই সাফল্যে মুগ্ধ হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনরের নির্দেশে তাঁকে ঋণসহ সব ধরনের সহযোগিতা করার উদ্যোগ নিয়েছে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক।

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. ইসমাইল হোসেনের পক্ষ থেকে বুধবার মাসুমা ইসলামের বাড়িতে গিয়ে তাঁর হাতে স্বল্প সুদে ঋণ গ্রহণের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পৌঁছে দেওয়া হয়। ব্যাংকটির বগুড়া উত্তর জোনের ব্যবস্থাপক শিশির কুমার রায়, দক্ষিণের জোনাল ব্যবস্থাপক আবদুল আলিম ও করপোরেট শাখার ব্যবস্থাপক তোফাজ্জল হোসেন ওই নারী উদ্যোক্তার বাড়িতে যান। এ সময় কর্মকর্তারা ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধিতে এই নারী উদ্যোক্তাকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।  

মাসুমা ইসলাম স্বামী, দুই সন্তান ও শাশুড়িকে নিয়ে থাকেন বগুড়া শহরের সিও অফিস কইগাড়ি এলাকায়। তাঁর স্বামী রাজিবুল ইসলাম চাকরি করতেন শহরের তারকা হোটেল নাজ গার্ডেনে, সহকারী হিসাব ব্যবস্থাপক পদে। গত বছরের এপ্রিলে করোনার সংক্রমণ ও লকডাউন শুরু হলে হোটেল বন্ধ হয়ে যায়। বেকার হয়ে পড়েন তিনি। দিশেহারা রাজিবুলের পাশে দাঁড়ান মাসুমা। বাড়িতে নানা রকম আচার বানানো শুরু করেন তিনি। করোনার কারণে আচার বিক্রির জন্য কোনো দোকান ভাড়া নিতে পারেননি। দোকান খোলেন অনলাইনে। অল্পদিনেই সাড়া পান। তবে মাসুমার আচার ব্যবসায় ঝড় তুলেছে গরুর মাংসের আচার। মাসে এখন ৩০ কেজি গরুর মাংসের আচার বিক্রি করেন তিনি। কেজি এক হাজার টাকা।

নারী উদ্যোক্তা মাসুমা ইসলামের বাড়িতে ফুল পাঠিয়ে অভিনন্দন জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। গভর্নরের পক্ষে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের কর্মকর্তারা ৩ জুলাই তাঁর হাতে ফুল তুলে দেন।
ছবি: প্রথম আলো

করোনাকালে ব্যবসা করে সফলতা পাওয়ার এই উদ্দীপনামূলক ঘটনা নিয়ে ৩ জুলাই প্রথম আলোয় ‘করোনায় আকাল কাটছে গরুর মাংসের আচারে’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। ওই প্রতিবেদন নজরে আসার পর বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির নারী উদ্যোক্তা মাসুমার এই সাফল্যে অভিভূত হয়ে তাঁর বাড়িতে ফুল পাঠিয়ে অভিনন্দন জানান। ওই দিনই গভর্নরের পক্ষে রাকাব বগুড়া উত্তর জোনের জোনাল ব্যবস্থাপক শিশির কুমার রায় ও সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মো. ফারুকুল হাসানের নেতৃত্বে কর্মকর্তারা মাসুমা ইসলামের বাড়িতে গিয়ে ফুল পৌঁছে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাকাবের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইসমাইল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, বগুড়ার নারী উদ্যোক্ত মাসুমা ইসলামকে নিয়ে প্রথম আলোতে ছাপা হওয়া প্রতিবেদনটি পড়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর মুগ্ধ হয়েছেন। তিনি নারী উদ্যোক্তা মাসুমা ইসলামের ব্যবসার পরিধি বাড়াতে স্বল্প সুদে ঋণ দেওয়াসহ প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তার নির্দেশ দেন। ইতিমধ্যেই ৪ শতাংশ সুদে শর্তহীন ঋণ গ্রহণের জন্য তাঁর কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

রাকাবের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরও বলেন, মাসুমা ইসলামের মতো উদ্যোক্তাদের স্বল্প সুদে ঋণ দেওয়ার মাধ্যমে সব সময় পাশে থাকতে চায় রাকাব। রাকাব রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে এ ধরনের উদ্যোক্তাদের এসএমই ঋণ ছাড়াও নানা কর্মসূচির মাধ্যমে সহায়তা করছে।

নারী উদ্যোক্তা মাসুমা ইসলামকে তাঁর গরুর মাংসের আচার যুক্তরাজ্যে বাণিজ্যিকভাবে রপ্তানির প্রস্তাব দিয়েছেন লন্ডনের একজন ব্যবসায়ী। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘প্রথম আলোতে প্রতিবেদন ছাপা হওয়ার পর অন্তত ১০০ কেজি গরুর মাংসের আচার, ঘি এবং রসুনের আচারের অর্ডার পেয়েছি। এর মধ্যে আজমল আলী নামের একজন লন্ডনপ্রবাসী ব্যবসায়ী গরুর মাংসের আচার যুক্তরাজ্যে রপ্তানির জন্য আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। প্রাথমিক পর্যায়ে তিনি ১০০ কেজি গরুর মাংসের আচার নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। এ জন্য তিনি আচারের নমুনাও পাঠাতে বলেছেন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে লন্ডনপ্রবাসী ব্যবসায়ী আজমল আলী বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশে রাসায়নিক দ্রব্য আমদানির পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকে লন্ডনে খাদ্যপণ্য রপ্তানি করছেন। গরুর মাংসের আচারের অভিনবত্ব আছে। এ কারণে তিনি মাসুমা ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাঁর গরুর মাংসের আচার যুক্তরাজ্যে বাণিজ্যিকভাবে রপ্তানির প্রস্তাব দিয়েছেন। তবে বাণিজ্যিক রপ্তানির জন্য বিএসটিআইয়ের অনুমোদন প্রয়োজন হবে। স্বাদ ও মান ভালো হলে দ্রুত তিনি এ আচার রপ্তানি করবেন।