বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিটি বাজারে একজন ক্রেতা রেজাউল করিম বলেন, শীতের সবজি হিসেবে নতুন আলুর স্বাদ কিছুটা ভিন্ন হওয়ায় এর চাহিদা থাকে। তাই এক কেজি আলু ৫০ টাকা দিয়ে কিনতে হলো।

নতুন আলুর দাম অনেকটা বেশি হওয়া প্রসঙ্গে এই বাজারের একজন ব্যবসায়ী আতোয়ার মিয়া বলেন, এক সপ্তাহ হলো নতুন আলু বাজারে এসেছে। তাই একটু দাম। কয়েক দিনের মধ্যেই দাম কমে যাবে।

এদিকে এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হওয়া ৬০ টাকা কেজির শিমের দাম কমে গিয়ে প্রকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজিদরে। টমেটোয় হাত দেওয়া যায় না।

পাকা টমেটো প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকায়। এক সপ্তাহের ব্যবধানে খুব একটা কমেনি ফুলকপি ও বাঁধাকপির দাম। ফুলকপি এখনো ৪০ টাকা ও বাঁধাকপিও কেজি ৪০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। ৬০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে বরবটি। বিভিন্ন শাকের আঁটি গড়ে ১৫ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে মুরগির দাম অপরিবর্তিত আছে। দেশি মুরগি ৪০০ টাকা কেজি। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকা। আর পাকিস্তানি কক ও সোনালি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা কেজিদরে।

বাজারে প্রচুর পরিমাণে মাছ উঠেছে, কিন্তু দাম কমেনি। আগের মতোই রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে প্রকারভেদে ২৬০ থেকে ৩৩০ টাকায়। প্রায় একই দামে বিক্রি হচ্ছে কাতল মাছও। বিভিন্ন প্রকারের ছোট মাছের প্রতি ক্রেতাদের চাহিদা থাকায় এসব মাছের দামও চড়া। শোল মাছ ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা। তবে একমাত্র তেলাপিয়া মাছের দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে রয়েছে। ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা কেজিদরে এই মাছ বিক্রি হচ্ছে। সোয়া কেজি থেকে দেড় কেজি ওজনের ইলিশ মাছ ১ হাজার ২০০ টাকা আর ছোট ইলিশ ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে।

মাছ কিনতে আসা ক্রেতা শুভাশীষ গুপ্ত বলেন, ‘বড় ইলিশের দাম কমছেই না। শখ করে মাছটি ১ হাজার ২০০ টাকা কেজিদরে কিনতে হলো ঠিকই, অন্য বাজার কমিয়ে নিতে হবে।’

গরুর মাংসের দাম আগের মতোই রয়েছে। প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৬০ থেকে ৫৮০ টাকা পর্যন্ত। আর খাসির মাংস কেজি ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন