বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলা সূত্রে রফিক হাসনাইন জানান, ওই স্কুলছাত্রীকে মেহেদী হাসান বিভিন্ন সময় উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। একটি ভাড়া বাসায় পরিবার–পরিজন নিয়ে বসবাস করতেন। ২০১৮ সালের ৭ জুলাই ওই ছাত্রী প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় রংপুর নগরের ধাপ চেকপোস্ট এলাকা থেকে মেহেদী ওই ছাত্রীকে মাইক্রোবাসে করে অপহরণ করেন।

ঘটনার তিন দিন পর ১০ জুলাই ওই ছাত্রীর বাবা কোতোয়ালি থানায় মেহেদীসহ তাঁর পরিবারের পাঁচজনকে আসামি করে রংপুর কোতোয়ালি থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। মামলার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে।২০১৮ সালের ৭ সেপ্টেম্বর পুলিশ পাঁচজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

এরপর ওই ছাত্রীর জবানবন্দি, দীর্ঘ সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে আজ আদালত রায় দিয়েছেন। এতে মেহেদীর অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া মামলার অন্য চার আসামি মোছা. মনি, মনোয়ারা বেগম, আমিনুল ইসলাম ও নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় তাঁরা খালাস পেয়েছেন।

পলাতক আসামির ব্যাপারে জানতে চাইলে রংপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, আদালতের রায়ের ব্যাপারে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে পুলিশকে কিছু জানানো হয়নি। এ ব্যাপারে আদালত থেকে নির্দেশনা পেলে পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তারের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন