বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরে তিনি রাঙ্গুনিয়া পৌরসভা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. এনামুল হককে জানালে তিনি ওই ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন। একপর্যায়ে কণ্ঠস্বর শুনে তাঁর সন্দেহ হয়। পরে ইউএনওর সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি ভুয়া বলে তাঁরা নিশ্চিত হন।
এ বিষয়ে ‘ইউএনও রাঙ্গুনিয়া’ নামে নিজের ফেসবুক আইডিতে গতকাল একটি স্ট্যাটাস দেন ইউএনও ইফতেখার ইউনুস। ওই স্ট্যাটাসে তিনি মুঠোফোন নম্বর ‘ক্লোন’ হতে পারে সন্দেহ করে সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানান।

ইউএনও বলেন, কয়েক দিন ধরে লোকজন কার্যালয়ে যোগাযোগ করে তাঁর মুঠোফোন নম্বর থেকে বিভিন্নজনের কাছে চাঁদা দাবির বিষয়টি তাঁকে জানান। পরে বিষয়টি তিনি রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) জানান।
জানতে চাইলে রাঙ্গুনিয়া থানার ওসি মো. মাহবুব মিলকী বলেন, মুঠোফোন ট্র্যাকিং করে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন