বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে একই ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের আবিদপাড়া এলাকা থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাঁদের কাছে একটি এলজি (লোকাল গান) ও একটি কার্তুজ পাওয়া যায়। সন্ত্রাসীদের অবস্থানের খবর পেয়ে তাঁদের দুজনকে ধরতে যান চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন ও রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাহবুব মিলকী।

দক্ষিণ রাজানগর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী মুসলিম সিকদার বলেন, ‘আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সালাম সিকদারের দুই ভাই এলাকায় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিচ্ছিল এবং আমাকে ও ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছিল। পরে এলাকার লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে তাঁদের ঘিরে রাখেন। পরে পুলিশ গিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করে।’ মুসলিম সিকদার আরও বলেন, ‘কয়েক দিন আগে নির্বাচন থেকে সরে যেতে আমাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়। এ ব্যাপারে আমি ইউএনও ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছি।’

২৮ নভেম্বর দক্ষিণ রাজানগর ইউনিয়নসহ রাঙ্গুনিয়ার ১৩টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হবে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আলমগীর সিকদারের বিরুদ্ধে রাঙ্গুনিয়াসহ বিভিন্ন থানায় হত্যা, চুরি, চাঁদাবাজি, মারধর, মাদক মামলাসহ সাতটি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া তাঁর ভাই জাহাঙ্গীর সিকদারের বিরুদ্ধে একটি মারধরের মামলা রয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন