বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্য মো. শাহজাহান বলেন, সোমবাইজ্যা হাট এলাকার বাসিন্দা বেদারুল আলমের সঙ্গে একই এলাকার শাহানা আক্তারের ২০১২ সালে বিয়ে হয়। এই দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে শাহানা আক্তার তাঁর শয়নকক্ষে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেন। তাঁর স্বামী বারান্দায় ছিলেন।

দীর্ঘক্ষণ দরজা না খোলায় সন্দেহ হয়। পরিবারের লোকজন প্রতিবেশীদের ডেকে ঘরের দরজা ভাঙেন। তখন ঘরের বিমের সঙ্গে রশিতে শাহানার নিথর দেহ ঝুলতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

নিহত শাহানা আক্তারের বড় বোন রোকসানা আক্তার বলেন, তাঁর ছোট বোনকে হত্যা করেছেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য লাশ রশিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়।

রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব মিলকী বলেন, লাশটি মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। আপাতত থানায় অপমৃত্যুর মামলা হবে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন