বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বানিবহ ইউনিয়নের বৃচাত্রা দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী আনোয়ার হোসেন বলে, ‘সকাল ৭টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়েছি। আমাদের মাদ্রাসা থেকে প্রায় ৩০টি ইজিবাইকে করে আমরা হাসপাতালে এসেছি। প্রচুর ভিড়। স্যাররাও সঙ্গে আছেন। আমি ঘণ্টা দুয়েক অপেক্ষা করার পর টিকা নিতে পেরেছি। অন্য সহপাঠীদের জন্য অপেক্ষা করছি। সবাই একসঙ্গে বাড়িতে ফিরব।’

একাধিক শিক্ষার্থী বলে, এখানে লাইনে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে কোনো নিয়মের বালাই নেই। কেউ শারীরিক দূরত্ব মানছে না। সবাই গা ঘেঁষে দাঁড়াচ্ছে। এতে কারও করোনা হয়ে থাকলে অন্যদের মধ্যেও তা সংক্রমিত হবে। এ ছাড়া রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ধুলাবালু। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত।

রক্ত নিতে আসা সজীব কুমার শিকদার বলেন, ‘আমি থ্যালাসেমিয়া রোগী। প্রতি মাসেই অন্তত একবার আমাকে হাসপাতালে আসতে হয়। আজকেও রক্ত নেওয়ার জন্য এসেছি। কিন্তু এত ভিড়, তা বলার মতো নয়। আমি ছাড়াও অনেক রোগী ভিড় ঠেলে ভেতরে প্রবেশ করতে পারছে না। শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার জন্য বিকল্প স্থানে ব্যবস্থা করা উচিত ছিল।

হাসপাতালে শৃঙ্খলার দায়িত্ব পালনরত রাজবাড়ী সদর থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সকাল ৮টা থেকে আমরা ১০ জন দায়িত্ব পালন করছি। টিকাকেন্দ্রে কিছুক্ষণ পরপর শিক্ষার্থীদের ঢোকানো হচ্ছে। একদল বের হলে আরেক দল পাঠানো হচ্ছে।’

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমরা আশা করছি, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারব। তবে হাসপাতালে অবকাঠামোগত সংকট রয়েছে। এ কারণে শিক্ষার্থীদের গাদাগাদি করে টিকা দেওয়া হচ্ছে।’

টিকা দেওয়ার দায়িত্বে থাকা মাহফুজুল হাসান বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ী, বেলা দুইটা পর্যন্ত টিকা দেওয়ার কথা। কিন্তু গতকালও আমরা বেলা আড়াইটা পর্যন্ত টিকা দিয়েছি। সীমিত জনবল নিয়ে টিকা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। আমরা কোনো শিক্ষার্থীকে ফিরিয়ে দিচ্ছি না। এ ছাড়া টিকা দেওয়ার পরও আরও অনেক কার্যক্রম থাকে। এগুলো সম্পন্ন করতে করতে আমাদের প্রায় সন্ধ্যা হয়ে যায়।’

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) এস এম শাহাদাত মিরাজ বলেন, ‘যেসব শিক্ষার্থী আসছে, তাদের প্রত্যেককে টিকা দেওয়া হচ্ছে। তবে শিক্ষার্থীদের চাপ অনেক বেশি। বেশি শিক্ষার্থী উপস্থিত হওয়ায় আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। হাসপাতালের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। আমরা বিষয়টি সিভিল সার্জনকে জানিয়েছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন