বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সমাবেশে তারা চার দফা দাবির কথা উল্লেখ করেছে। তাদের দাবিগুলো হচ্ছে—চলমান চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সকে তিন বছরে রূপান্তর করার উদ্যোগ বন্ধ করা এবং এই কোর্সকে আরও আধুনিকায়ন করা। বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড ২০২০-এর সংজ্ঞা ও ধারা-উপধারা সংশোধন এবং আন্তমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশের আলোকে ঢাকা ইমারত নির্মাণ বিধিমালা-২০০৮ সংশোধন করে গেজেট প্রকাশ। ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের স্পেশাল ইনক্রিমেন্ট প্রদান, পদোন্নতির কোটা ৫০ ভাগে উন্নীত করা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরিতে বিএসসি প্রকৌশলী ও ডিপ্লোমা প্রকৌশলী ১ অনুপাত ৫ হিসাবে পদ সৃষ্টি করে প্রজ্ঞাপন জারি এবং ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে সহযোগিতা করা। দেশের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ (টিভিইটি) প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষকস্বল্পতা দূর করা, আধুনিক ল্যাব ও ওয়ার্কশপের সংকট দূর করা, শিক্ষকদের সম্মানী নিশ্চিত করা এবং শিক্ষার্থীদের বৃত্তি, ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেনিং ভাতা বৃদ্ধিসহ ২৯টি ইমার্জিং টেকনোলজিতে বেকার ডিপ্লোমা গ্র্যাজুয়েটদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা।

বক্তারা বলেন, সরকার ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সকে চার বছর মেয়াদি করে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করে। কিন্তু আমলাদের একটি পক্ষ ষড়যন্ত্র করে সম্প্রতি এই কোর্সকে তিন বছরে নামিয়ে আনছে।

কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র-শিক্ষক পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদের রাজশাহী জেলার আহ্বায়ক প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর আলম, সদস্যসচিব প্রকৌশলী মো. আয়াতুল্লাহ, ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইইডিবি) রাজশাহীর জেলার সভাপতি প্রকৌশলী আমিনুল হক, সাধারণ সম্পাদক হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী প্রমুখ।

default-image

বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র-শিক্ষক পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদের রাজশাহী জেলার আহ্বায়ক প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সরকার ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সকে চার বছর মেয়াদি করে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করে। কিন্তু আমলাদের একটি পক্ষ ষড়যন্ত্র করে সম্প্রতি এই কোর্সকে তিন বছরে নামিয়ে আনছে। ইতিমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এটা পেশ করা হয়েছে। এখন কেবল প্রজ্ঞাপন জারির পালা। কিন্তু এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিলে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের মান কমে যাবে। আন্তর্জাতিক বাজারে তাঁরা কম মূল্যায়ন পাবেন এবং অনেকের কাজ হারানোর শঙ্কাও রয়েছে।

জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, তাঁরা প্রকৌশলীদের সহযোগী হিসেবে কাজ করেন। মূল প্রকৌশলীরা মাঠপর্যায়ে কাজ করেন না, তাঁরা শুধু দেখিয়ে দেন। আর বাকি কাজ সম্পাদন করেন এই ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা। তাই সরকারকে এই আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান জানান তাঁরা।

৭ সেপ্টেম্বর থেকে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা দেশব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন শুরু করেছে। ইতিবাচক আন্দোলনের অংশ হিসেবে ১২ সেপ্টেম্বর তাঁরা দেশব্যাপী নিজ নিজ কর্মস্থলে অতিরিক্ত এক ঘণ্টা কাজ করেন। ১৫ সেপ্টেম্বর তাঁরা মানববন্ধন করে স্মারকলিপি দেন। দাবি বাস্তবায়নে তাঁরা নভেম্বর পর্যন্ত নানা কর্মসূচি পালন করবেন বলে জানিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন