default-image


রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গতকাল সোমবার অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জোড়া পেট যমজের জন্ম হয়েছে। তাদের হাত-পা, মাথা আলাদা হলেও পেট একটাই। তাদের কোনো পায়ুপথ নেই। জরুরি অস্ত্রোপচারের জন্য তাদের ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু সার্জারি বিভাগে নেওয়ার পরামর্চিশ দিয়েছেন কিৎসক।
বাচ্চা দুটির মায়ের নাম আঙ্গুরি বেগম (৩৫)। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বিদিরপুর গ্রামের রুবেল হোসেনের স্ত্রী। রুবেল একজন রুটির দোকানি।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গতকাল ভোর পাঁচটার দিকে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শিশু দুটির জন্ম হয়। বেলা দুইটার দিকে আঙ্গুরি বেগম ও তাঁর দুই সন্তানকে হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হয়েছে। তাঁরা গ্রামের বাড়ি ফিরে গেছেন।

বিজ্ঞাপন

স্বজনেরা জানান, প্রসববেদনা শুরু হলে গত রোববার সন্ধ্যায় আঙ্গুরি বেগমকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি ক্লিনিকে নেওয়া হয়। তখন আল্ট্রাসনোগ্রাম করে চিকিৎসক জানান, এখানে তাঁর কিছুই করা সম্ভব নয়। তাঁকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। রাত দুইটার সময় তাঁকে রাজশাহীতে এনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভোরে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে দুই শিশুর জন্ম হয়।
বাচ্চা দুটির নানি আনোয়ারা বেগম জানান, তাঁর মেয়ের ১৮ বছর বয়সী একটা ছেলে আছে। আরেক ছেলের বয়স ১৫ বছর। একটা মেয়ের আশায় বাচ্চা নিয়েছিলেন।
জানতে চাইলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ও শিশু সার্জারি বিশেষজ্ঞ মো. নওশাদ আলী প্রথম আলোকে বলেন, বাচ্চা দুটির পেট থেকে নিচের দিকে জোড়া লাগানো। প্রস্রাব-পায়খানার রাস্তা নেই। ছেলে না মেয়ে—তা বোঝার উপায় নেই। বাচ্চা দুটি সুন্দর তাকাচ্ছিল। খাবার দিলে খাচ্ছিল, কিন্তু খাওয়ালে পেট ফুলে উঠতে পারে এই আশঙ্কায় শুধু স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। তাদের ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু সার্জারি বিভাগে যেতে বলা হয়েছে।
পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তারা ঢাকায় না গিয়ে টাকা জোগাড় করার জন্য বেলা দুইটার দিকে রাজশাহী থেকে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন