বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এতে বলা হয়, পরীক্ষামূলক সংরক্ষণের জন্য স্থাপিত এ ধরনের মিনি হিমাগারে আম, টমেটো, ড্রাগন ফল, গাজর ইত্যাদি এবং বিভিন্ন শাকসবজি রাখা যাবে। এটি ছাড়াও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ ও নাটোরের আহমদপুরে যথাক্রমে আট ও চার মেট্রিক টনের আরও দুটি মিনি হিমাগার স্থাপন করা হচ্ছে বলে জানানো হয়। পরীক্ষার ফল সন্তোষজনক হলে আরও হিমাগারের ব্যবস্থা করা হবে।

অনুষ্ঠানে আসাদুল্লাহ একই প্রকল্পে ২০২১-২২ অর্থবছরের পরিকল্পনা উপস্থাপন এবং ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাস্তবায়িত কার্যক্রম পর্যালোচনা শীর্ষক আঞ্চলিক কর্মশালা-২০২১-এর উদ্বোধন করেন।

কর্মশালায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সি, উদ্ভিদ সঙ্গনিরোধ কেন্দ্র, হর্টিকালচার সেন্টার, কৃষি তথ্য সার্ভিস, ধান গবেষণা, এসআরডিআই, ফল গবেষণা, গম ও ভুট্টা গবেষণা, লাক্ষা গবেষণা, বিনা, বিএডিসি, বিএমডিএর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ প্রায় ১০০ জন উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বলা হয়, বাংলাদেশ সবজি ও ফল উৎপাদনে পৃথিবীতে রোলমডেল। তবে হিমাগার তৈরি করলে কৃষকেরা ফল ও শাকসবজির অনাকাঙ্ক্ষিত সংগ্রহ–উত্তর ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবেন। পাশাপাশি আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। সেই সঙ্গে দেশের পুষ্টি–দারিদ্র্য দূর হবে এবং পরিবারের পুষ্টির সুষমবণ্টন নিশ্চিত হবে।

সভায় বলা হয়, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ফল ও শাকসবজির সংগ্রহ–উত্তর ক্ষতি প্রায় ৫০ শতাংশের ওপরে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। ফল ও সবজির সঠিক সংরক্ষণের অভাবে কৃষক অনেক সময় সঠিক দাম পাচ্ছেন না। ক্ষুদ্র পরিসরে তৈরি হিমায়িত সংরক্ষণাগার এ ক্ষতি লাঘবে অনেক ভূমিকা রাখতে পারবে। কৃষকের আয় বাড়াতে সহায়তা করবে। গ্রামীণ পর্যায়ে মিনি হিমাগার তৈরি করে কৃষিপণ্য সংরক্ষণের বিপ্লব সাধিত হতে পারে। শুধু তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ফল ও শাকসবজির সংরক্ষণকাল প্রায় এক মাস পর্যন্ত বাড়ানো যেতে পারে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন